1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০:১৩ অপরাহ্ন

আনোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রথম সভায় অনুপস্থিত ৯ ইউপি চেয়ারম্যান

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২১ জুন, ২০২৪
  • ৩২ Time View

Badrul Hoque

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:

আনোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রথম সভায় অনুপস্থিত ছিলেন ৯ ইউপি চেয়ারম্যান। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠানিক চিঠি ও টেলিফোন করে উপস্থিত থাকার জন্য বার বার তাগাদা দেয়া হলেও শেষ মুহুর্তে আসেন নি ইউপি চেয়ারম্যানরা। ইউপি চেয়ারম্যানদের ‘রহস্যজনক’ এই ভূমিকায় বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। গত ২৯ মে ২২ হাজারেরও বেশি ভোটের ব্যবধানে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি কাজী মোজাম্মেল হক। নির্বাচনে তিনি অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খানের সমর্থন পান। অপরদিকে সাবেক ভথমিমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদের অনুসারী ১১ ইউপি চেয়ারম্যান ভোটের মাঠে নবনির্বাচিত কাজী মোজাম্মেল হকের বিপক্ষে সরব ছিলেন। তারা সাবেক ভূমিমন্ত্রীর সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী তৌহিদুল হক চৌধুরীর পক্ষে ছিলেন।

২০শে জুন বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠান ও মতবিনিময় সভায় বিদায়ী উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী , উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইশতিয়াক ইমন, বরুমচড়া ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শামসুল ইসলাম চৌধুরী ও স্থানীয় প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তারা নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেলকে শুভেচ্ছা জানান ও আগামীতে আরো ভালো কাজের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। যখন এই মতবিনিময় সভা চলছিল একই সমযে উপজেলার ৯ ইউপি চেয়ারম্যান একটি বেসরকারী টিভি চ্যানেলে লাইভে যুক্ত হয়ে নিরাপত্তাহীনতার অজুহাতে উপজেলা চেয়ারম্যানের সমন্বয সভা বর্জনের ঘোষণা দেন। বারশত ইউপি চেয়ারম্যান এম এ কাইয়ুম শাহ অভিযোগ করেন, ভোটের পর একজন চেয়ারম্যানের উপর হামলা হয়েছে। আরো কয়েকজনকে হুমকি দেয়া হয়েছে। নিরাপত্তার বিষয়ে শংকিত হয়ে তারা উপজেলা সমন্বয় সভায় যান নি।

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেল হক বলেন, ওরা কখনো জনগণের ভোটে নির্বাচিত হতে পারেনি। তাই জনগণের সামনে আসতে ভয় পায়। যেহেতু ভোটে জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে লজ্বায় মুখ দেখাবে কীভাবে! তাই নতুন নাটক সাজিয়েছে। চক্রান্তের নাটের গুরু বারশত ইউপি চেয়ারম্যান। আর চাতরী চেয়ারম্যান প্রকাশ্য জনসভায় জনগণকে পিষে মারার হুমকি দিয়েছিল। তারাই এখন নিরাপত্তার গল্প সাজায়।

মানুষ এখন তাদের ভন্ডামি বুঝে গেছে। আনোয়ারার ১১ইউপি চেয়ারম্যানের সবাই সাবেক ভূমিমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ সাইফুজ্জামান চৌধুরীর অনুসারী হিসাবে পরিচিত। এরমধ্যে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য বটতলী ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক এম এ মান্নান চৌধুরী পদত্যাগ করায় তার পদটি শূন্য রয়েছে। বাকী ১০ চেয়ারম্যানের মধ্যে ৯ জন অনুপস্থিত থাকলেও উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠানে হাজির হন বরুমচড়া ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শামসুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি বলেন, সবকিছুই ঠিকঠাক ছিল। ৯ চেয়ারম্যানের এই অনুপস্থিতিতি জনগণের রায়কে অসম্মান করার শামিল। এটা এক রকম জনবিচ্ছিন্নতা। ভোটে জয়পরাজয় থাকবে, তারা যা করল সেটা খারাপ দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। বাস্তবে নিরাপত্তা নিয়ে কোন ধরনের প্রশ্ন ছিল না।

এর আগে সমন্বয় সভায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেল হক বলেন, উপজেলা প্রশাসন হবে জনবান্ধব। এখানে জবাবদিহিতা ও সচ্ছতা নিশ্চিত করা হবে। সত্যিকার অর্থে জনগণের সেবক হতে চাই। সকলের সম্মিলিত চেষ্টায় ইনশাআল্লাহ আমরা এগিয়ে যাব। বক্তৃতায় বিদায়ী উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী বলেন, গত ১০ বছর সবাইকে নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করেছি। নতুন উপজেলা চেয়ারম্যান বিচক্ষণ ও সুদক্ষ ব্যক্তি। তিনি দূরদর্শীতার মাধ্যমে এই উপজেলাকে আরো এগিয়ে নেবে এটাই প্রত্যাশা। এ বিষয়ে আনোয়ারা থানার অফিসার ইনচার্জ সোহেল আহমেদ বলেন, আইনশৃংখলা ও নিরাপত্তার বিষয়ে যথেষ্ট সচেষ্ট ছিলাম কেন ইউপি চেয়ারম্যানগন উপস্থিত হয়নি তা বোধগম্য নয়।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com