1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০:১১ অপরাহ্ন

গহিরায় নারীকে হত্যার পর পুকুরে ইট বাঁধা নিক্ষেপিত লাশ ও কদলপুরে বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার !

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৭০ Time View

প্রদীপ শীল, রাউজানঃ

রাউজানের গহিরা ইউনিয়নের দলই নগরে একটি পুকুরে এক নারী ও কদলপুর ইউনিয়নের সোমবাইজ্যে হাট এলাকায় এক বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার করেছে রাউজান থানা পুলিশ।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ৮ ডিসেম্বর সকালে উপজেলার গহিরা ইউনিয়নের দলই নগর এলাকায় পদ্ম পুকুরে একটি লাশ ভাসতে দেখে পুলিশকে খবর দিলে সকাল ১১ টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধার করেন। উদ্ধারকৃত লাশটি পৌরসভা ৩ নং ওয়ার্ডের শায়ের মো. চৌধুরীর বাড়ী মৃত মোজারুল হকের পুত্র মো. মনছুর আলমের স্ত্রী নাছরিন আকতার সূবর্ণা (২৫)। অপরদিকে, কদলপুর ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের সোমবাইজ্যা হাট এালাকায় একটি আইডিয়াল স্কুলের পাশে খালের পাড়ে একটি লাশ দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে সাড়ে ১০ টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করেন। উদ্ধারকৃত লাশটি একই ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে ভোমরপাড়া গ্রামের ইদ্রিস চেয়ারম্যানের বাড়ির মৃত তনজিল আহমেদের পুত্র জালাল আহমেদ(৬০)। দলই নগর এলাকায় পদ্ম পুকুরে থেকে উদ্ভার করা মহিলাকে গলায় কিছু ইট বেঁধে পুকুরে নিক্ষেপ করা হয়েছে। লাশের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহৃ রয়েছে।

স্থানীয়রা ধারণা করছেন ধর্ষণের পর হত্যা করে পুকুরে ফেলে দেয়া হয়েছে। জানা গেছে মৃত সুরর্ণা গত কয়েক বছর ধরে বাপের বাড়ী ফটিকছড়ি উপজেলার জাহানপুর ইউনিনে থাকেন। সুবর্ণা- মনচুরের এক বছরের একটি শিশু সন্তান রয়েছে। হত্যাকান্ডের শিকার সুবর্ণার স্বামী মনচুর আলম জানান, চট্টগ্রাম শহরে একটি চাকরী করতেন তিনি। হঠাৎ তার চাকরী চলে গেলে সুবর্ণা বাপের বাড়ী চলে যায়। মাঝে মধ্যে সেই দেখতে শ^শুড়বাড়ীতে যেতেন। তিনি বলেন, গত কয়েকদিন আগে সুরর্ণা বাড়ীতে এসে শিশুপুত্রকে রেখে চলে যায়। এরপর আমার সাথে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। স্থানীয় গ্রাম পুলিশের দফাদার কণিকা বড়–য়া জানান, নাছরিন আক্তার সুবর্ণার শরীরে নির্যাতনের চিহৃ দেখেছি। আমার দেখা মতে মেয়েটি গণ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। পুলিশ জানিয়েছেন, জিজ্ঞেসাবাদের জন্য সুবর্ণার স্বামী মনচুর আলমকে আটক করা হয়েছে। অপর দিকে কদলপুর ইউনিয়নে উদ্ধার হওয়া জালাল আহম্মেদ পারিবারিক অশান্তিতে ভোগ ছিলেন। জালাল আহম্মেদ তিনটি বিয়ে করেন। দুইটি তালাক দিলেও বড় স্ত্রী রোকেয়া বেগমকে তালাক দেয়নি।

তবে তিনি আলাদা থাকতেন নিজ বাড়ীতে। বড় বউ জয় নগর বড়–য়া পাড়ায় আলাদা ভাড়া বাসায় থাকেন। জালাল আহম্মদের নিকট আত্বীয় কহিনুর বেগম জানান, গত কয়েকদিন আগে নিজ পুত্র শফিকুল ইসলাম বাহাদুরের যন্ত্রনায় তাদের বাসায় আসে জালাল আহম্মদ। তিনি জানান, গত সোমবার অনেক লোকজন নিয়ে আমার বাড়িতে আসে জালালের পুত্র। এসে জায়গা জমি তার নামে লিখে দিতে চাপ প্রয়োগ করে। এইনিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। তিনি জানান, জালাল আহম্মদ চেয়েছিল তার মৃত্যুর আগে জায়গা জমি ভাগ না করতে। কিন্তু তার ছেলে অতিরিক্ত চাপ দিলে গতকাল মঙ্গলবার ভোরে নামাজ পড়ে বেড়িয়ে যায় বলে জানান জালালের শালীকা কহিনুর। স্থানীয় ইউপি সদস্য নাছির উদ্দিন জানন, জালাল আহম্মদের প্রথম স্ত্রীর গর্ভে দুই মেয়ে ও এক সস্তান।

দ্বিতীয় স্ত্রীর গর্ভে দুই কন্যা সন্তান ও তৃতীয় স্ত্রীর গর্ভে একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। স্থানীয়রা ধারণা করছেন মানসিক যন্ত্রণা থেকে জালাল আহম্মদের মৃত্যু হতে পারে। একই দিনে দুইটি লাশ উদ্ধার সর্ম্পকে সহকারী পুলিশ সুপার (রাগুনিয়া সার্কেল) আনোয়ার হোসেন শামীম বলেন, গহিরায় উদ্ধারকৃত মহিলার লাশটি প্রাথমিকভাবে হত্যা বলে ধারনা করা হচ্ছে। অপরদিকে কদলপুরে উদ্ধারকৃত বৃদ্ধের লাশটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা ময়না তদন্তের মাধ্যমে জানা যাবে। আপাতত দুইটি ঘটনা আমরা তদন্ত করে দেখবো। এর সাথে জড়িতদের সনাক্ত করতে পুলিশ কাজ করছেন।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com