1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৩৫ অপরাহ্ন

চন্দনাইশের কাঞ্চন পেয়ারা সু-খ্যাতি বিদেশেও

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২১ আগস্ট, ২০২০
  • ১৪২ Time View


চন্দনাইশের কাঞ্চন পেয়ারার সু-খ্যাতি এখন দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও ছড়িয়ে পড়ছে। কাঞ্চন পেয়ারাকে বাংলার আপেল খ্যাতি দিয়েছে সাধারণ মানুষ। চন্দনাইশের উৎপাদিত পাহাড়ের পেয়ারা সম্পন্ন অরগৈনিত ভাবে বিষমুক্ত পেয়ারা হওয়ায় এবং স্বাধে ও গন্ধে অতুলনীয় হওয়ায় কাঞ্চন পেয়ারা দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানী হচ্ছে। যে চন্দনাইশের কাঞ্চননগর, হাশিমপুরের পেয়ারা দেশের সীমানা পেরিয়ে এখন বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের চন্দনাইশের পাহাড়ে পাহাড়ে তোকাই তোকাই এখন পেয়ারা শোভা পাচ্ছে। আবাহাওয়া অনুকুলে থাকায় কাঞ্চন পেয়ারার বাম্পার ফলনও হয়েছে। তাই পেয়ারা চাষীরা আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ায় তাদের পরিবারে চলছে খুশির জোয়ার।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার কাঞ্চননগর, লর্ট এলাহাবাদ, হাশিমপুর, জঙ্গল হাশিমপুর, জামিরজুরী, ধোপাছড়ি, পার্শ্ববতী পটিয়ার খরনা এলাকার উচুঁ নিচু পাহাড়ের পেয়ারা গাছে প্রচুর ফলন হয়েছে। প্রতিটি গাছে ঝুলে থাকা তোকাই তোকাই পেয়ারা পাহাড়কে ভিন্ন ভিন্নরূপে সাজিয়েছে। সবুজ পাতার ঢালগুলো যেন রঙিন পেয়ারার ভারে হেলে পড়েছে। এসব এলাকার অসংখ্য মানুষ পেয়ারা চাষ করে লাভবান হচ্ছে।

সে সাথে এলাকার বেকার যুব সমাজ পেয়ারা চাষে জড়িয়ে নিজেরা স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছে। এভাবে চলবে তিনমাস। পেয়ারা চাষ সৌভাগ্যের যাদু লাগিয়ে দিয়েছে চন্দনাইশের প্রায় ২০ হাজার মানুষের জীবন-জীবিকায়। কিছু বিপণন সমস্যা ও প্রক্রিয়াজাতকরণের সমস্যার কারণে তথা কোল্ড ষ্টোরেজ না থাকায় উৎপাদিত পেয়ারার ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে কৃষকেরা। চন্দনাইশের মত এত সুস্বাদু পেয়ারা বাংলাদেশের আর কোথাও উৎপাদন হয় না। চন্দনাইশের কাঞ্চন পেয়ারা খুবই সুস্বাদু।

বিশেষজ্ঞদের এখানে একটি ফুড ফুডস ফিজারবেন প্ল্যান কমপ্লেক্স করা গেলে মাল্টিজুস এবং জেলি বিক্রির শিল্প কারখানা করা সম্ভব হবে। এতে করে ব্যবসায়ী ও কৃষকেরা উপকৃত হবে। চন্দনাইশের কাঞ্চননগর, হাশিমপুর, ছৈয়দাবাদ, লর্ট এলাহাবাদ, পূর্ব এলাহাবাদ, দোহাজারী, রায়জোয়ারা, লালুটিয়া, ধোপাছড়ির ৩০ কিলোমিটার এলাকায় ২০ হাজারেরও বেশি বাগানে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে পেয়ারা চাষ হয়। এছাড়া গেরস্থির বাড়ী ভিটা, চন্দনাইশের শঙ্খনদী, পটিয়ার শ্রীমাই, খরনা খালের দুই তীর ঘেঁষে ব্যাপক পেয়ারা উৎপাদন হয়। এখন পেয়ারার মৌসুম। গোল, লম্বাটে, ছোট-বড় নানা আকারের পেয়ারা উৎপাদিত হচ্ছে চন্দনাইশের পাহাড়ে।

একেবারে নরম কিংবা আধাপাকা যেভাবে খান না কেন পেয়ারা অতুলনীয়। পুষ্টিগুণও অনেক ফলের তুলনায় বেশি। বিশেষজ্ঞদের মতে এতে কমলের অনেক গুণ ভিটামিন সি রয়েছে। বিশ্বজুড়ে পেয়ারা একটি সমাধৃত ফল। এশিয়া, ইউরোপ, আমেরিকার অনেক দেশে এ ফলের চাষ হয়। ইতিমধ্যে মেক্সিকোর পেয়ারার খ্যাতি রয়েছে সারা বিশ্বে। পেয়ারায় ভিটামিন সি, ক্যারটিনয়েডস, ফোলেট, পটাশিয়া, আশ, ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ। ১শ গ্রাম পেয়ারায় ২শ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি রয়েছে।

সে হিসেবে পেয়ারায় কমলার চেয়ে চারগুণ ভিটামিন সি আছে। পেয়ারার কুশায় কমলার চেয়েও ৫ গুণ বেশি ভিটামিন সি থাকে। পুষ্টিমানের বিবেচনায় কমলার তুলনায় পেয়ারায় পুষ্টিমানের বিবেচনায় কমলার মান থেকে যেখানে ১৮৬ পয়েন্ট সেক্ষেত্রে পেয়ারার পুষ্টি মূল্যমান ৪২১ পয়েন্ট। বার্ধক্য ঠেকাতে নিয়মিত খাদ্য তালিকায় পেয়ারা যোগ করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। সারাদিন একটি পেয়ারা খেয়েই ভিটামিন সি এর চাহিদা মেটানো সম্ভব। খোসাসহ পেয়ারা খেলে প্রচুর আঁশ পাওয়া যায়।

এ আঁশ শরীরের জন্য খুবই দরকারী। ডায়াবেটিস রোগীর জন্য বেশ উপকারী। পেয়ারা আঁশ রক্তের চিনি নিয়ন্ত্রণ করে, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। ফলে দেহ ও মন থাকে সতেজ ও প্রফুল্ল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খাদ্যবিজ্ঞান ইন্সটিটিউট এর জরিপে জানা যায়, বাংলাদেশে শতকরা ৯৩ জন লোকের মধ্যে ভিটামিন সি এর অভাব রয়েছে। এ ভিটামিন সি পূরণের জন্য পেয়ারা খাওয়া অত্যন্ত জরুরী। স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য দৈনিক ৩০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি খাওয়া প্রয়োজন।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com