1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১১:১৬ অপরাহ্ন

চন্দনাইশে দু’ভাই হত্যা মামলায় ওসি প্রদীপসহ ৫ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে অবশেষে মামলা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৮৯ Time View


এসএম রাশেদ


চন্দনাইশ উপজেলার কাঞ্চনাবাদ এলাকার দু’ভাইকে অপহরন করে বন্দুকযুদ্ধের নাটক সাজিয়ে হত্যা করার অভিযোগে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ দাশসহ ৫ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রাম চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কামরুন নাহার রুমির আদালতে মামলাটি দায়ের করেন নিহত আমানুল ইসলাম ফারুক ও আজাদুল ইসলাম আজাদ এর বোন বাদী রিনাত সুলতানা শাহীন।


বিজ্ঞ আদালত মামলাটি গ্রহণ করে জেলা পুলিশের এডিশনাল এসপিকে (আনোয়ারা সার্কেল) আগামি ২০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।
মামলার অন্যান্য আসামিরা হলেন- টেকনাফ থানার এসআই ইফতেখারুল ইসলাম (৩৮), কনস্টেবল মাজহারুল (৩৬), দীন ইসলাম (৩৪) ও আমজাদ (৩৫)।


মামলার এজহারে বাদি রিনাত সুলতানা শাহীন উল্লেখ করেন, গত ১৩ ও ১৫ জুলাই ফারুক ও আজাদকে চন্দনাইশ থানার সহযোগিতায় অপহরণ করে নিয়ে গিয়ে ৮ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয় এবং মাদক আইনে মামলা টুকে দেয়া হয়। পরে মুক্তিপণের টাকা দিতে ব্যর্থ হলে বন্দুকযুদ্ধের নাটক সাজিয়ে তাদেরকে হত্যা করা হয়।


আইনজীবী জিয়া হাবীব আহসান সাংবাদিকদের জানান, ‘মূলত মুক্তপণের টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় দুই সহোদরকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় দুই সহোদরের বোন রিনাত সুলতানা শাহীন চীফ জুডিশিয়াল মাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করলে সেটি বিচারক গ্রহণ করেন এবং আনোয়ারা সার্কেলের এডিশনাল এসপিকে আগামী ২০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দেন।’

হত্যা মামলার বাদী রিনাত সুলতানা শাহীন মামলার সত্যতা স্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, সাবেক ওসি প্রদীপসহ যারা তার দুই ভাইয়ের হত্যার সাথে জড়িত তাদের সঠিক বিচারের মাধ্যমে ফাঁসি দাবী জানান।


নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত ১৫ জুলাই রাতে টেকনাফের জালিয়াপাড়ায় দু’সহোদর পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার ঘটনাকে মিথ্যা প্রমানিত করে তাদেরকে ক্রসফায়ারের মাধ্যমে ওসি প্রদীপ কুমার দাশ । মামলার বাদী রিনাত সুলতানা শাহীন জানায়, তার ভাই আজাদ দীর্ঘদিন বিদেশে ছিল। গত ৬ রমজান সে দেশে আসে। বড়ভাই ফারুক দেশে মোবাইল সার্ভিসিংয়ের কাজ করতো। পাশাপাশি তারা স্থানীয়ভাবে পেয়ারা বাগান করতো। নিহত ফারুক ও আজাদ ইয়াবা ব্যবসার সাথে কখনো জড়িত ছিলনা। গত ১৩ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে আজাদ তার এক বন্ধুর ফোন পেয়ে ঘর থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয়।

সর্বশেষ ১৪ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে আজাদের মোবাইল ফোন থেকে মায়ের মোবাইলে একটি ম্যাসেজ আসে। তাতে লেখা ছিল “মা আমি শেষ”। এর পরপরই তার পরিবারের পক্ষ থেকে মোবাইল ফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও কোন খবর পাওয়া যায়নি। পরদিন ১৫ জুলাই চন্দনাইশ থানায় এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরী করতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় দুপুর ২টার দিকে ফারুকের বাসায় পুলিশ আসে। তারা বাসায় তল্লাশী চালিয়ে কিছু না পেয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা বলে ফারুকে নিয়ে যায় এবং জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে ছেড়ে দেয়া হবে বলে জানায় পুলিশ। কিন্তু রাত ৮টার দিকে জানতে পারেন গত ১৪ জুলাই ফারুকের বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় মামলা হয়েছে। পরে টেকনাফ ও উখিয়া থানায় খবর নিয়ে জানা যায় ফারুক ও আজাদের বিরুদ্ধে কোন মামলা হয়নি। ওইদিন রাত ১০টায় শেষ নাম্বার ৮৩৪ অজ্ঞাত নাম্বার থেকে কল দিয়ে বলা হয় দাবিকৃত টাকা না দিলে তাদেরকে ক্রসফায়ারে হত্যা করা হবে। গত ১৬ জুলাই সকাল ৭টার দিকে টেকনাফ থানা থেকে ফোন আসে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল থেকে ফারুক ও আজাদের লাশ চিহ্নিত করে নিয়ে যাওয়ার জন্য। গত ১৮ জুলাই তাদের লাশ নিয়ে এসে চন্দনাইশের কাঞ্চননগরস্থ ৬নং ওয়ার্ডে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এনিয়ে নিহতদের পরিবার সংবাদ সম্মোলনেরও আয়োজন করেন।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com