1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন

চন্দনাইশে পিতার দায়িত্ব নিয়ে অসহায় এতিম ২টি মেয়ের বিয়ের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করলে প্রবাসী জসিম

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২ মার্চ, ২০২৪
  • ২১ Time View


দুলা গাড়ী থেকে নেমেছে,কনের পক্ষের লোকজন বরকে ফুলের ডালা নিয়ে বরণ করে বিয়ের স্টেটে তুলেছে, ফুলের মালা বদল, ষ্টেটে স্বস্ব বর কনের পক্ষের লোকজন সাথে ছবি তোলাসহ নানা আনুষ্ঠনিকতা শেষে পিতার দায়িত্বে চন্দনাইশ পৌরসভার বদুর পাড়া এলাকার সমাজ সেবক ও দানবীর প্রবাসী জেসিকা গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জসিম উদ্দীন নিজস্ব অর্থায়নে চন্দনাইশের অসহায় এতিম ২টি মেয়েকে গতকাল ১ মার্চ (শুক্রবার) তার নিজ বাড়ীর আঙ্গিনা থেকে প্রায় সাড়ে ৪শ বরযাত্রীদের আম্পায়নের মাধ্যমে ২টি মেয়ে এক স্টেট থেকে ২টি বর ও বরের পরিবারের হাতে তুলে দিয়ে বিয়ে সম্পন্ন করেছেন।

মেয়ে দুটির বিয়েতে সোফা,খাট,আলমিরা ও আলনাসহ সংসারের যাবতীয় জিনিসপত্র উপহার হিসেবে সঙ্গে দিয়েছেন। এমন ব্যতিক্রমী ও মহতি উদ্যোগ গ্রহণ করে চন্দনাইশসহ সারা চট্টগ্রামে সাড়া পেলে দিয়েছে। এ বিয়ের আয়োজন দেখার জন্য অনেকে দুর দুরান্ত থেকে ছুটে এসেছেন বিয়ের প্রাঙ্গণে। এসময় এ মহতি উদ্যোগকে স্বাগত জানান তারা। যাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়েছেন তারা হলেন উপজেলার উত্তর গাছবাড়ীয়া বদুর পাড়া এলাকার রাবিয়া বেগম (১৯) এর সাথে একই এলাকার এরশাদ মিয়ার পুত্র নাঈম (২৪) ও উপজেলার দক্ষিণ গাছবাড়ীয়া আবদুল বারীহাট এলাকার মৃত শামসুল আলমের কন্যা নাজু আকতার এর সাথে একই উপজেলার দোহাজারী পৌরসভার পূর্ব হাছনদন্ডী এলাকার মোঃ ফারুক (২৩)।

বিবাহ অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা হেলাল আকবর চৌধুরী বাবর, মীর মহিউদ্দীন, এলডিপি নেতা আইনুল কবির, চন্দনাইশ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এম মোরশেদুল আলমসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ।

এ সময় প্রবাসী জেসিকা গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জসিম উদ্দীন বলেন, মানব সেবা একটি ইবাদতের অংশ। তাই গত দুই মাস আগে চন্দনাইশে ১০০ অসহায়,দুস্থ,এতিম বিয়ের উপযুক্ত রয়েছে কিন্তু টাকা পয়সার অভাবে বিয়ে দিতে পারচ্ছেন না এমন পরিবারের বিয়ের যাবতীয় খরচ নির্বাহ করে বিয়ে দিবেন।

তাছাড়াও তিনি বিয়ের পরও বিয়ে দেওয়া মেয়েদের পরিবারের খবরা খবর নিবেন। ইতিমধ্যে গত এক মাসে ১৯টি মেয়ের বিয়ের যাবতীয় খরচ দিয়ে বিবাহ দিয়েছেন।

তবে এগুলো তাদের পরিবারের সম্মতি না থাকায় তাদের বাড়ী থেকে মেয়েকে তুলে দিয়েছিলেন। আনুষ্ঠানিকভাবে গতকাল শুক্রবার ২টি ও এছাড়া আগামী শুক্রবারও আরো ১০টি মত অসহায় মেয়ের বিয়ের আয়োজন করার কথাও জানালেন। পরবর্তী মাহে রমজানের পর আবারো বিয়ের কার্যক্রম চালিয়ে যাবেন।

এসময় আরো বলেন, যতদিন বেঁচে আছেন ততদিন, গরীব দুস্থ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রোগী ও বিভিন্ন রকম অসহায় পরিবার ও বিভিন্ন মাদ্রাসা,এতিমখানাসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সহযোগীতা করে যাবেন।

তাছাড়া তিনি আগামী রমজান মাসে চন্দনাইশে ৫০ হাজার পরিবারের মাঝে ইফতার সাগ্রমী বিতরণ করবেন বলে ঘোষণা দেন।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com