1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১১:৪৬ অপরাহ্ন

জয়িতা অন্বেষণে ফটিকছড়ির- ৪ নারীর গল্প

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৭১ Time View

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি :
মুনতাসির জাহান ২০১৩ সালে ৩১তম বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে বিসিএস (প্রশাসন)ক্যাডারে যোগদান করেন। কর্মময় জীবনের বিষয়ে তিনি বলেন, আমি ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার অফিস থেকে নেত্রকোণা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে পদায়িত হই।পরবর্তীতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় টাঙ্গাইল,সহকারী পরিচালক হিসাবে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী, সহকারী কমিশনার (ভুমি) হিসাবে মুন্সিগঞ্জ সদর, সিনিয়র সহকারী কমিশনার,মুন্সিগঞ্জ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে লক্ষীপুরের রামগঞ্জ উপজেলায় এবং বর্তমানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে কাপ্তাই উপজেলা ,রাঙ্গামাটি জেলায় দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। আমি ফটিকছড়ি উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা মো:আবু তাহের মাসুদ ও রাজিয়া মাসুদের মেয়ে। ১৯৮৪সালের ৩১ শে ডিসেম্বর চট্টগ্রাম জেলার ফটিকছড়ি থানার ১৪নং নানুপুর ইউনিয়নের মাইজভান্ডার গ্রামে তালুকদার আশরাফ আলী সাওদাগরের বাড়ীতে এক সম্ভ্রন্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করি। ১৯৯০-১৯৯৪ সাল পর্যন্ত ভান্ডার শরীফ আহমদিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষার পাঠ শেষ করে। পরবর্তীতে ২০০০ সালে মাইজভান্ডার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান শাখায় ষ্টার মার্কসসহ প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হয়ে; সরকারী হাজি মুহাম্মদ মহসিন কলেজ চট্টগ্রাম থেকে ২০০২ সালে বিজ্ঞান শাখায় প্রথম বিভাগে কৃতিত্বের সাথে ইন্টারমিডিয়েটের পাঠ চুকে ২০০৩ সালে ভর্তি হই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগে। ২০১০ সালে বিএসসি (অনার্স)জিপিএ ৩.৬ এবং ২০১১সালে এমএস জিপিএ ৩.৫৫ (ড়ঁঃ ড়ভ গ্রেড ৪)নিয়ে উত্তীর্ণ হই। উল্ল্যেখ্য ৩য় বর্ষে পড়াকালীন ২০০৮ সালে একই উপজেলার ধুরুং গ্রামের মুহাম্মদ সরোয়ার সাজ্জাদ আলম চৌধুরীর সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হই। গ্রামের রক্ষণশীল সমাজব্যবস্থার মধ্যে মহান আল্লাহতায়ালার অপার রহমত এবং মা-বাবার অসীম কষ্টের ফলে লেখাপড়া চালিয়ে প্রতিটি সেক্টরে ভাল ফলাফল করি। ভাল ফলাফলের পাশাপাশি সাং¯ৃ‹তিক কর্ম-কান্ডে ও জড়িত হয়েছি। বিয়ের পরেও প্রতিক‚ল পরিবেশে পড়াশোনা চালিয়ে যাই।

              ছকিনা বেগম : রক্ষণশীল পরিবারে থেকে জীবনের গল্প বলতে গিয়ে আজ তিনি আনন্দে আতœহারা। ৬৩ বছর বয়সে সংসার জীবনের কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, আমার স্বামী মরহুম আবদুল মালেক পেশায় একজন কৃষক ছিলেন। আমার ৬ জন ছেলে মেয়ে ছিল। আমার স্বামী একজন কৃষক হওয়ার কারণে আমাদের আর্থিক অবস্থা তেমন ভালো ছিলনা। তাছাড়া রক্ষণশীল সমাজ ব্যবস্থার কারণে বাহিরে কোন কাজ করার সুযোগ ছিলনা। যার ফলে আমাদের জীবনযাপন করতে খুব কষ্ট হতো। তবে শত কষ্টের মধ্যেও মনের বল হারাইনি। দুই ছেলে ও চার মেয়েকে পড়াশোনা ছাড়তে দেয়নি খেয়ে না খেয়ে ওদের পিছনে শ্রম,সুখ শান্তি বিলিয়ে দিয়েছি। আমার বড় ছেলে মোঃ ইয়াছিন আরাফাত উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির লক্ষীছড়ি উপজেলায় কর্মরত আছে এবং ছোট ছেলে মোঃ সাজ্জাত বর্তমানে প্রবাসে রয়েছে। আমার চার মেয়ে বর্তমানে বিবাহিত । তিনি ফটিকছড়ি উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়নের দক্ষিন সুন্দরপুর গ্রামের মৃত আবদুল মালেকের সহধর্মীনি। তাহার মাতার নাম, মাসুদা খাতুন।
               জাহানারা বেগম: একজন সংগ্রামী মহিলা জাহানারা বেগম তিনি ২ ছেলে ২ মেয়ের জননী, ছোট ছোট ছেলে মেয়ে রেখে বিগত ১৪ বছর পূর্বে তাঁহার স্বামী মারা যান। তাহার স্বামীর মৃত্যুর পর তিনি এতিম ছেলে মেয়ে নিয়ে সাহসিকতার সাথে জীবন সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তিনি তার ছেলে মেয়েকে প্রতিষ্টা করার লক্ষ্যে অতিকষ্ট ও নানা প্রতিক‚লতার মধ্যে লেখাপড়া চালিয়ে নেন।তিনি সমাজ কর্মের মাধ্যমে জাহানপুর ১নং ২নং ও ৩নং ওয়ার্ডের মানুষের মন জয় করেছেন। ফলে তিনি বিগত ২০০৩ সাল হইতে বিনা প্রতিদ্ধ›িদ্ধতায় সংরক্ষিত আসনে মহিলা কোঠায় ইউ.পি সদস্য নির্বাচিত হয়ে অদ্যবধি পর্যন্ত মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন।তাহাকে এলাকার মানুষ একজন মহিয়সী নারী হিসেবে বিবেচিত করেন।বর্তমান তার পারিবারিক অবস্থান তাহার ২মেয়ে বিবাহিত ,এবং  ২ ছেলের মধ্যে এক ছেলে চট্টগ্রাম সরকারী সিটি কলেজ থেকে বি এস এস/¯œাতক ডিগ্রি অর্জন করে, বর্তমানে ফতেপুর জে.বি নূরীয়া দাখিল মাদরাসায় সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে কর্মরত নিয়োজিত আছেন। ২য় ছেলে চট্টগ্রাম সরকারী কর্মাস কলেজ থেকে এম.বি.এ ডিগ্রি অর্জন করে বর্তমানে ইছাপুর বাদশা মিয়া চৌধুরী ডিগ্রি কলেজে কর্মরত আছেন। তিনি ফটিকছড়ি উপজেলার জাহানপুর মখলেছ মাষ্টার বাড়ীর জনৈক মৃত আনোয়ার মাষ্টারের সহ ধর্মীনি।

              পল্লবী খাস্তগীর: বাবার ঘরে একমাত্র আদরের মেয়ে পল্লবী খাস্তগীর। তিনি জীবনের সফলতা ইতিহাস বলতে গিয়ে বলেন, দুই ভাইয়ের এক বোন। বাবা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। মা- ধুরুং খুলশী লায়ন্স বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষিকা।তখনকার দিনে নাজিরহাট কলেজ থেকে বি.এস-সি পাশ করেন। বাবার কাছে ছেলে মেয়ে ভাগ ছিলো না। বড় ভাই বিপ্লব খাস্তগীর তখন বাংলাদেশ নৌ বাহিনীতে কর্মরত। আমাদের পরিবারটা ছিলো স্বপ্নের মতো সাজানো। ছোট ভাই অনজন খাস্তগীর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে মেরিন সায়েন্স বিভাগে পড়তো। আমার গ্রামে ছিলো সংস্কৃতি কিংবা খেলাধুলায় উন্নত। গ্রামে নিয়মিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হতো। ২১ শে ফেব্রæয়ারী, ২৬শে মার্চ, ১৬ই ডিসেম্বর তখন থেকেই মিশে আছে রক্তের সাথে। বাবা বিয়ের জন্য চেষ্টা করলে হেসে বলতাম সরকারি চাকুরী ছেলে না হলে হবে না। বাবা বিশ্বাস করেছিলো। তাই একদিন এক ছেলে সরকারি চাকুরী দেখে এক দিনেই বিয়ের কথা ঠিক করে বাড়ী ফিরলেন। সেদিন ছিল ২১শে ফেব্রæয়ারী। সন্ধ্যায় অনুষ্ঠান। তাই ঘুমিয়ে ছিলাম বিকালে বাবা এসে মাকে বললেন বিয়ের কথা দিয়ে এলাম মার্চের ১ তারিখ বিয়ে। আমার মা ছিলেন চাকুরীজীবি। আমার স্বামী থাকতো শহরে। এভাবেই ৩ মাস পরে বি.এড এ ভর্তি হলাম। এক সময় একটা স্কুলে ইন্টারভিউ দিলাম। চাকরিটা খুব সহজে ২২ বছর বয়সে হয়ে গেলো। পৃথিবীটা কঠিন, খুব কঠিন। তবে আমার স্বামী ছিলো পাশে। এক সময় শক্ত হলাম।

শিক্ষকতা পেশায় যোগ দিলাম। সন্তানের বয়স তখন ৯ মাস। ৯ মাসের কোলের বাচ্চাকে ফেলে জীবন সংগ্রামে নামলাম। শুধুমাত্র সন্তানের ভবিষ্যতের কথা ভেবে “আমার সন্তানকে আমাকেই মানুষ করতে হবে”। যেদিন আমি প্রথম শিক্ষকতা পেশায় যোগ দিতে যাচ্ছিলাম সেদিন আমি গাড়িতে নিজে নিজেই শপথ করেছিলাম “আমি একদিন প্রধান শিক্ষক হবো”।
জীবনের একটা সময় নিজেকে শেষ করে দিতে চেয়েছিলাম। আজ সেই মেয়ে ঘুরে দাঁড়ালো। এক সময় কোলে আসে আরো দু’সন্তান। ৩ সন্তান নিয়ে জীবন যুদ্ধে নেমেছিলাম। সবসময় সৎভাবে দায়িত্ব পালন করেছি। স্বপ্ন দেখতাম, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতাম। এক সময় বড় মেয়ের জন্য পেলাম ডেটল স্বপ্ন পূরণ অফার। ছোট মেয়ে তুনতুনির জন্য পেলাম, এ্যাংকার স্বপ্ন জয়ী মা। মেরিল আদরে গড়া ভবিষ্যৎ ২০১৪ এর ১০ লাখ টাকার শিক্ষা বীমা। একটা মায়ের স্বপ্ন আর কি থাকতে পারে? একে একে ভরে উঠলো নিজের জীবন।
এরপর ২০১৭ সালের ফেব্রæয়ারী মাসের ২৫ তারিখ যোগদান করলাম। প্রধান শিক্ষক পদে। আবার পাল্টে গেলো জীবন। ছিলাম বয়সে সবার ছোট, কিন্তু দায়িত্বে যখন বসি, তখন প্রথম দিন আবার স্বপ্ন দেখি বিদ্যালয়ের একদিন শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক হবো। নেমে পড়লাম মাঠে। বিদ্যালয়কে ঢেলে সাজালাম। পথটা ছিলো খুবই কঠিন। আবার আর একটি নতুন অধ্যায়ের শুরু। প্রথম দিনই স্বপ্ন দেখি ভালো ফলাফল করে বিদ্যালয় এগিয়ে নিতে হবে। যে ভাবা সে কাজ শুরু। দিন-রাত ২৪ ঘন্টা পরিশ্রম করেছি গ্রামের একটি বিদ্যালয়ের জন্য। সংসার পরিবার তখন মাথায় থাকতো না। হলো ভালো ফলাফল। অনেকখানি বাধা পার হয়ে আসতে হয়েছে। এত এত বাধা যা কখনো কেউ কল্পনা করতে পারবে না। কিন্তু আমার লক্ষ্যে আমি অটল ছিলাম। সৃষ্টিকর্তা যখন দেয়, তখন নাকি দু’হাত ভরেই দেয়। প্রধান শিক্ষক হওয়ার ৩ বছরের মাথায় “শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক” হলাম। এরপরও মাথায় ঘুরতো নতুন কিছু করবো। করোনাকালীন সময়ে যখন ১৭ই মার্চের পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায় তখন অবসর পেয়ে উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখা শুরু করি। সেপ্টেম্বর মাসেই শুরু করি উদ্যোক্তা জীবন। কাজ করছি বাংলাদেশের ঐতিহ্য “জামদানি শাড়ী” নিয়ে। দেশের সংস্কৃতি, দেশীয় শিল্প এখন ছড়িয়ে দিবো বিশ্বে। এগিয়ে নিবো নারীদের। প্রতিটি ঘরের নারী হয়ে উঠবে স্বাবলম্বী। উদ্দ্যোক্তা হওয়ার মাত্র দু’মাসে লাখপতি হয়ে গেলাম। এক সময় স্বপ্নের জামদানী পৌঁছে যায় দেশের বাইরে। এবার শুধু সামনে এগিয়ে যাবার পালা। চট্টগ্রামের নারীদের মাঝে জামদানিকে সহজলভ্য করে পৌঁছে দেব। জীবনের নানা সাফল্যে ভরা এ শিক্ষিকা উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়নের পাচঁ পুকুরিয়া গ্রামের সনজিত কুমার খাস্তগীরের মেয়ে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com