1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১০:১৭ অপরাহ্ন

দুই দেশের দুই প্রান্তে মানুষের মনে উৎসবের আমেজ, উদ্বোধনের অপেক্ষায় রামগড় ইমিগ্রেশন।

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১০ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ১২৫ Time View

রফিকুল আলম :

চট্টগ্রামের তথা দেশের সর্ববৃহত ফটিকছড়ি উপজেলার সীমান্ত ঘেঁষা রামগড়ে ইমিগ্রেশন কার্যক্রম চালুর সকল প্রস্তুতি ইতিমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। এখন শুধু মাত্র উদ্বোধনের অপেক্ষা। কয়েক দিন আগে ইমিগ্রেশন কার্যক্রম চালুর প্রস্তুতি দেখতে ভারত স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আদিত্য মিত্র ও কাস্টমসের প্রধান কমিশনার যোগেন্দ্র র্গাগসহ উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল রামগড় ইমিগ্রেশন ভবন ও সাব্রুম ইমিগ্রেশন চেক স্টেশন পরিদর্শন করে গেছেন।
পরিদর্শন কালে ভারতীয় প্রতিনিধিদলে অারো ছিলেন,ভারত স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষর পরিচালক (প্রকল্প) গীতেশ দীপ, ভারতের কাস্টমসের অতিরিক্ত কমিশনার টমাস বাসু মিত্র, সহকারী কমিশনার অভ্যুদয় গুহ, স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের সহকারী প্রকৌশলী কাভার সিং, ম্যানেজার ডি নন্দী।এ সময় চট্টগ্রামে নিযুক্ত ভারতের সহকারী হাই কমিশনার এইচ ই ড. রাজীব রঞ্জন এবং রামগড় ৪৩ বিজিবি’র পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. হাফিজুর রহমান ও সাব্রুমের ৯৬ বিএসএফ’র কমান্ড্যান্ট কৃষ্ণ কুমার লাল উপস্থিত ছিলেন। পরিদর্শনের পর সীমান্তের দু’দেশের মানুষের মনে উৎসবের আমেজ দেখা যাচ্ছে।
জানা যায়,১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন সময় থেকে রামগড়ের ঐতিহাসীক পটভূমির ইতিহাস স্মরণ করে সেই ঐতিহাসীক স্থান রামগড়েই সরকার “বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতু -১ “নির্মাণ করেছেন। এ সেতুকে কেন্দ্র করে সরকার “রামগড় স্থলবন্দর ” গড়ে তোলার পরিকল্পনা হাতে নেন।
নির্মিত এ মৈত্রী সেতুর দৈর্ঘ্য ৪’শ১২ মিটার, প্রস্ত ১৪ দশমিক ৫ মিটার এবং ডাবল লাইনযুক্ত। এ সেতুর নির্মাণ খাতে ব্যয় হয়েছে ৮৮ কোটি ৫৭ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ভারতের গুজরাটস্থ দিনেশ চন্দ্র আগারওয়াল কোম্পানী এ সেতু নির্ণান করেন। এ মৈত্রী সেতু ‘ চালু হলে বাংলাদেশ ও ভারত এ দু’দেশের মধ্যে সীমান্ত বানিজ্যের প্রসার ঘটবে এবং উভয় দেশ অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হবে।
এ ইমিগ্রেশন স্টেশন চালু হলে বৃহত্তর চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামসহ আশপাশ এলাকার মানুষ রামগড় ও সাব্রুম সীমান্ত পথে ভারতে ভ্রমণে যেতে পারবেন। একইভাবে ভারতের ত্রিপুরাসহ আশেপাশের রাজ্যের মানুষও এ সীমান্ত পথে বাংলদেশে ভ্রমণে আসতে পারবেন। দক্ষিণ ত্রিপুরার মহকুমা শহর সাব্রুম থেকে ইতিমধ্যে আগরতলা পর্যন্ত রেল সার্ভিসও চালু করা হয়েছে বলে প্রাপ্ত খবরে জানা যায়। ওখানে মহাসড়কেরও উন্নয়ন করা হয়েছে।
এদিকে, চট্টগ্রামে সড়ক পথে যাতায়াত সুবিধার জন্য আপাতত ঢাকা- চট্টগ্রাম মহা সড়কের মীরসরাই উপজেলার করেরহাট থেকে হেয়াঁকো হয়ে রামগড় পর্যন্ত ডাবল সড়ক নির্মাণ শুরু হয়েছে। এ সড়কের সব সেতুর নির্মাণ কাজ ইতিমধ্যে সত্তর শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে।
সূত্রে প্রকাশ, রামগড় থেকে হেয়াঁকো হয়ে ফটিকছড়ি — নাজিরহাট – চট্টগ্রাম বন্দর পর্যন্ত পৃথক দুইটি সড়কের কাজ বিগত দু’বছর ধরে চলছে। চট্টগ্রাম- নাজিরহাট শাখা লাইন থেকে রামগড় স্থলবন্দর পর্যন্ত রেল লাইন স্থাপন করতে অনেক আগেই পরিকল্পনা মন্ত্রনালয় থেকে প্রাথমিক জরিপ এবং সম্ভাব্যতা যাচাই করতে সরকারী সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা পরিদর্শন করেছিলেন। এ লাইনে রেল সার্ভিস চালু করা হলে এ স্থল বন্দরের গুরুত্ব আরো বৃদ্ধি পাবে।
অপরদিকে, এ মৈত্রী সেতু নির্ভর রামগড় স্থলবন্দরের কাজ প্রায় সমাপ্ত। দক্ষিণ ভারতের ত্রিপুরার সাব্রুম, আসাম, মেজোরাম এবং বাংলাদেশের পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির রামগড়, মাটিরাঙ্গা, মানিকছড়ি, চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি, হাটহাজারী, মীরসরাই, সীতাকুন্ড সহ বৃহত্তর চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ টি উপজেলা বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হবে।
রামগড় স্থলবন্দরের প্রকল্প পরিচালক মো: সরোয়ার আলম বলেন, রামগড় সাব্রুম স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন কার্যক্রম চালুর প্রস্তুতি দেখার জন্য ভারতীয় প্রতিনিধিদলটি সরেজমিনে পরিদর্শন করে গেছেন। তিনি বলেন, ইমিগ্রেশন কার্যক্রম চালু করার জন্য রামগড় ইমিগ্রেশন ভবন পুরোপুরি প্রস্তুত। এখন শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষায় ইমিগ্রেশন।
এব্যাপারে ফটিকছড়ির সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরীত ফটিকছড়ির শেষ প্রান্তে রামগড় স্থল বন্দর চালু হলে দু’দিকে ব্যবসা- বাণিজ্য বৃদ্ধি পাবে ও সীমান্তে কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে। অর্থনৈতিক ভাবে দেশ লাভবান হবে। এ সেতু উদ্বোধন হলে দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবশানের পর দু’দেশের সীমান্তের মানুষের মনে উৎসবের আনন্দ দেখা যাবে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com