1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১২:১৯ পূর্বাহ্ন

হামলার শিকার পরিবারকে মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি, দোহাজারীতে নির্যাতিত পরিবারের সাংবাদিক সম্মেলন

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৩০ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৪৮ Time View

চন্দনাইশ প্রতিনিধি


চন্দনাইশ দোহাজারী পৌরসভার জামিজুরী গালিমের দীঘির উত্তর পাড় এলাকায় গত ২৪ ডিসেম্বর ভোর ৫টায় ৩০ বছরের পুরোনো রাস্তার উপর প্রতিবন্ধিকতা সৃষ্টি করে ঘর বাঁধতে বাঁধা দেওয়ায় আজম ও নাজিম গং সন্ত্রাসী কায়দায় পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়ে মাসুমের পরিবারের ৫ সদস্যকে গুরুতর আহত করে। আহতদের মধ্যে মিশকাত ও তাহেরা বেগম বর্তমানে চমেক হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। অন্যদিকে আসামীদের মধ্যে কয়েজন জামিনে এসে নির্যাতিত পরিবারকে প্রাণ নাশের হুমকির প্রতিবাদে ৩০ ডিসেম্বর বিকাল ৩টায় দোহাজারী প্রেস ক্লাব হল রুমে এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন অসহায় হামলার শিকার নির্যাতিত পরিবার।


লিখিত বক্তব্যে মাসুম বলেন, গত ৭ নভেম্বর ৩০ বছরের পুরোনো রাস্তা উপর স্থানীয় মৃত আবু জাফর প্রকাশ-জহর আলীর পুত্র আজম (৩৩) ও নাজিম (২৬) ওই চলাচলের রাস্তার উপর জোর পূর্বক ঘর নিমার্ণের জন্য রাস্তার উপর খুঁটি ঘাড়ে। এসময় মাসুম দোহাজারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের একটি অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ বাঁধা দিলে কাজ বন্ধ করে দেয়। পরবর্তীতে ৭ নভেম্বর বাদী হয়ে চন্দনাইশ থানা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবরে রাস্তা প্রতিবন্ধকতা নিয়ে লিখিত একটি অভিযোগ দায়ের করেন মাসুম। পক্ষান্তরে মোঃ আইয়ুব রাস্তায় যে ঘর নির্মিত হচ্ছে সেটা আইয়ুবদের পৈত্রিক জায়গা ও ক্রয়কৃত সম্পত্তি দাবী করে। তখন পরিবার চলাচলের জন্য সে রাস্তা ক্রয় করার জন্য আইয়ুবকে প্রস্তাব দেয়। আইয়ুবও রাস্তা দিতে সম্মতি প্রকাশ করে। পরবর্তীতে আইয়ুব রাস্তার উপর আজম ও নাজিম গং কে জোর পূর্বক গাড়া খুঁটিগুলি তুলে ফেলার জন্য বলে।

কিন্তু তারা তাদের কথায় কর্ণপাত না করে খুঁটিগুলো তুলে না ফেলায় আইয়ুব বাদী হয়ে চন্দনাইশ থানায় ১১ নভেম্বর একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে ভিত্তিতে চন্দনাইশ থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই সুজায়েত উভয় পক্ষকে ডাকে কিন্তু তার কোন কথায় আজম ও নাজিম গং কর্ণপাত না করলে পরবর্তীতে ১৪ ডিসেম্বর আদালতে আইয়ুব বাদী হয়ে একটি ১৪৫ ধারা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার খবর পেয়ে গত ২৪ ডিসেম্বর ভোর ৫টায় আজম গং বিভিন্ন অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে রান্না ঘর নিমার্ণের কাজ শুরু করে। এতে মাসুমের পরিবার বাঁধা দিলে তাদের উপর অর্তকিত হামলা চালায়। এসময় আবু জাফরের স্ত্রী তাহেরা বেগম (৩২), মৃত হাজী আবদুল মতলবের স্ত্রী ছখিনা বেগম (৫৫),মৃত হাজী মতলবের পুত্র মাসুম (৩০)তার ভাই মিশকাত (১৯) ও মোবারক আলীর পুত্র মোঃ আইয়ুব (৩২)। আহতদের মধ্যে অন্যান্যরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিলেও তাহেরা বেগম ও কলেজ পড়–য়া মিশকাতের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদেরকে প্রথমে চন্দনাইশ হাসপাতাল পরে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে এখনো তারা জীবন মরণ সন্ধিক্ষণে রয়েছে।


এ ঘটনায় ২৬ ডিসেম্বর চন্দনাইশ থানায় মাসুম বাদী হয়ে ৬জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করলে পুলিশ অদ্যাবধি কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি। অন্যদিকে আসামীগন জামিনে এসে তার পরিবারকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছে। এছাড়া প্রতিপক্ষ নিজেরা রাস্তা খুঁটি তুলে ও ঘর ভাংচুর করে তাদেরকে বিভিন্ন মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে বলে লিখিত বক্তব্য তিনি উল্লেখ করেন। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, আইয়ুব আলী, রিমা আক্তার, শারমিন আক্তার তানিয়া, মাসুমা আক্তার, রাজ্জাক প্রমুখ।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com