1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৪:২২ পূর্বাহ্ন

নাজিরহাট হালদা সেতু’র পাশে বেইলী ব্রীজ নির্মাণের আশ্বাস দিলেন – সচিব এবিএম আমিন উল্লাহ নূরী

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৯ জুন, ২০২৩
  • ৫৩ Time View

রফিকুল আলম :

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরীত চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির নাজিরহাটে হালদার নদীর ওপর নির্মিত জরাজীর্ণ সেতুর পাশে একটি বেইলী ব্রীজ নির্মাণের আশ্বাস দেন সড়ক- মহাসড়ক বিভাগের সচিব এবিএম আমিন উল্লাহ নূরী। শুক্রবার ( ৯ জুন) সকালে সেতুটি পরিদর্শন শেষে তিনি এ ঘোষণা দেন।
এর আগে সেতু সংলগ্ন নাজিরহাটস্থ জেলা পরিষদ চত্বরে
নাজিরহাট পৌর সভার মেয়র একে জাহেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংক্ষিপ্ত আলোচনানা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সচিব এবি.এম আমিন উল্লাহ নূরী। স্বাগত বক্তব্য রাখন চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি এটিএম পেয়ারুল ইসলাম।
এ সময় ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: সাব্বির রাহমান সানি, হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহিদুল আলম সহ, প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তা ছাড়াও পৌরসভার কাউন্সীলর,স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।
বক্তব্যে সচিব আরো বলেন, সেতুটির গুরুত্ব বিবেচনা করে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। তবে মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হওয়ায় হালদা নদীর ওপর ব্রীজ করতে গেলে কিছু জটিলতা দেখা দেবে। সেক্ষেত্রে উপজেলা পরিষদের সমন্বয় সভার সীদ্ধান্ত এবং স্থানীয় এমপি’র ডিও লেটার প্রয়োজন হবে।

এর আগে  প্রধান অতিথি ফটিকছড়ি এসে  মাইজভান্ডার দরবার শরীফ জিয়ারতে যান। এসময় ফুলদিয়ে শুভেচ্ছা জানান বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন বিটিএফ এর নাজিরহাট পৌরসভার সভাপতি মোহাম্মদ শাহজালাল।

উল্লেখ, ১৯৩০ সালে ব্রিটিশ সরকার এ সেতুটি নির্মান করে। লোহার এঙ্গেলের উপর তৈরী একমূখী সেতুটি লম্বায় ৩শ ২০ ফুট, প্রস্থে ৮ ফুটের কাছাকাছি। পরবর্তীতে
স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন পাক হানাদার বাহিনী ডিনামাইড দিয়ে সেতুটির একাংশ ধ্বংস করে দেয়। পরে বাংলাদেশ সরকার ১৯৭২ সালে সেতুটি মেরামত করে পুনঃ যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল করে। এরপর ২০০৫ সালে সেতুটি পুনঃমেরামতের কাজ হলেও ২০০৮ সালে সওজ কর্তৃপক্ষ সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দেয় । ১৯৯৪ সালে সড়ক ও জনপদ বিভাগ এটিকে ঝুঁকিপূর্ণ দেখিয়ে সেতু দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়।
২০১৯ সালের শেষের দিকে সেতুটির একাংশ তিন চার ফুট ধেবে যায়। সম্প্রতি সেতুর দুই পাশের রেলিং ভেঙে পড়ায় গত ১৭ এপ্রিল ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাব্বির রাহমান সানি ও হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাহিদুল আলম পরিদর্শন করে  সেতুর দুইপাশে ঝুঁকিপূর্ণ সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দেওয়ার জন্য নাজিরহাট পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে বলেন।
এরপর নাজিরহাট পৌরসভা কর্তৃপক্ষ যান চলাচল বন্ধ করে নোটিশ টানিয়ে দেন। ফলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স,১০/১২ টি ক্লিনিক, বাজার ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানে বিভিন্ন কাজে আসা দৈনিক হাজারো মানুষ দূর্ভোগে পড়েছে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com