1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৬:২৭ অপরাহ্ন

পুটিবিলার পহঁরচান্দায় সরকারি খাস টিলা-পাহাড় কাটার অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৪ জুন, ২০২১
  • ৭৫৪ Time View

ইসমাইল হোসেন সোহাগ, বিশেষ প্রতিনিধি

সরকারি আইনকে তোয়াক্কা না করে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার ৭নং পুটিবিলা ইউনিয়নের দক্ষিণ পহঁরচান্দা মাদার কাটা নয়াপাড়া এলাকায় নির্বিচারে সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত টিলা-পাহাড় কাটার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চলমান করোনা পরিস্থিতিতে সুযোগ নিয়ে লোহাগাড়া উপজেলার ৭নং পুটিবিলা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ পহঁরচান্দা মাদার কাটার নয়াপাড়া গ্রামের এক বাসিন্দা সরকারি আইনকে তোয়াক্কা না করে সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত টিলা কাটা অব্যাহত রেখেছে।

টিলা কাটার ফলে এলাকায় ভূমিধস ও পরিবেশ বিপর্যয় ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। টিলা কাটার মাটি গুলো কেটে রাস্তায় ফেলার কারণে সাধারণ জনগণের চলাচল অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এতে যান চলাচলেও ব্যাহত হচ্ছে। এদিকে বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন, ১৯৯৫-এর ধারা ৬-এর খ উপধারায় উল্লেখ করা হয়েছে যে, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান সরকারি বা আধা সরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন বা ব্যক্তি মালিকানাধীন পাহাড়-টিলা কাটা যাবে না। কিন্তু এই আইন লঙ্ঘন করে টিলা-পাহাড় কাটা অব্যাহত রেখেছে দক্ষিণ পহঁরচান্দা মাদার কাটা নয়াপাড়া এলাকায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি জানান, সপ্তাহ ধরে রাত-দিন মাটি কাটা হলেও কেউ বাধা দেয়নি। স্থানীয় কিছু লোক মৌখিক ভাবে বাধা দিলেও কোনো কাজ হয়নি। বর্তমানে এই টিলার মাটি কেটে প্রায় সাবাড় করে ফেলছে। সমতল ভূমিতে পরিণত করা হয়েছে টিলাটি। মাটি কাটার জন্য রয়েছেন ১০/১৫ জন শ্রমিক। তাছাড়াও মাটি গুলো ফেলা হচ্ছে সড়কে। আর যে মাটি কাটতেছে তিনি এলাকার এক দালালের সহযোগিতায় কাটতেছে। এলাকার মানুষ সহজ-সরল বলে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেন না বলেও জানান। স্থানীয় এক শিক্ষক জানান, ভূমির শ্রেণি পরিবর্তন করা যায় না। টিলা কিংবা পাহাড় কাটতে হলে পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি প্রয়োজন। এভাবে টিলা-পাহাড় কাটা পরিবেশের জন্য খুবই ক্ষতিকর। টিলা-পাহাড় কাটার জন্য যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা করা অবশ্যই দরকার। না হলে টিলা-পাহাড় রক্ষা করা কঠিন হয়ে পড়বে।

এদিকে সরকারি খাস টিলা-পাহাড় কাটার বিষয়ে স্বীকার করে উক্ত ব্যাক্তি বলেন, টিলা কাটা অপরাধ আগে জানতাম না। আমি কোন ধরনের সরাসরি অনুমতি ছাড়ায় টিলা টি কাটতেছি। আমি এই টিলার মাটি কাটার পর দোকান নির্মাণ করার কথাও বলেন তিনি।

এ বিষয়ে লোহাগাড়া উপজেলার নির্বাহী অফিসার আহসান হাবীব জিতু বলেন, টিলা-পাহাড় কাটার বিষয় সত্যতা পাওয়া গেছে। ইউপি চেয়ারম্যান’কে পাঠানো হয়েছে। কারা টিলা ও পাহাড় কাটতেছে দেখার জন্য।

তিনি আরও বলেন, টিলা-পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। কারা এই টিলা-পাহাড় কাটাতেছে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com