1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন

ফটিকছড়িতে ২য় দিনে আরো ৩ টি ইট ভাটা গুড়িঁয়ে দিয়েছে জেলা প্রশাসন, ১ টিতে ৪ লাখ ৯৯ হাজরা টাকা জরিমানা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ২১৫ Time View

রফিকুল আলম

হাইকোর্টের আদেশে পরিবেশ অধিদপ্তরের চলমান অভিযানের ২য় দিনে চট্টগ্রামে ফটিকছড়িতে ৩ টি অবৈধ ইটভাটা গুড়িঁয়ে দিয়েছে জেলা প্রশাসন। আর ১ টি ইট ভাটা হতে ৪ লক্ষ ৯৯ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে।

মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত এই অভিযান চলে। আগের দিন আরো ৪ টি ইট ব্রিক ফিল্ড গুড়িয়ে দেয়া হয়। অথচ বর্তমানে মুজিব বর্ষের প্রায় ৬ শত ঘরের জন্য ৭ হাজার করে কয়েক লাখ ইটের প্রয়োজন। তাছাড়া সরকারী ভাবে আরো বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজের জন্য কয়েক কোটি ইটের প্রয়োজন রয়েছে। ফলে ইটের অভাবে উপজেলায় নানা উন্নয়ন কাজে বিঘ্ন সৃষ্টি হবে। জানা,যায়, অভিযানে উপজেলার নানুপুর ইউনিয়নে কেবিএম ব্রিক ,খিরাম ইউনিয়নে এমবি ব্রিক স্কেভেটর দিয়ে চিমটি ভেঙ্গে দেয়; আর ফেলুঢার দিয়ে কাঁচা ইট গুঁড়িয়ে দেয়।

তাছাড়া খিরাম ইউনিয়নের এবি ব্রিককে ২ মাসের সময় বেঁধে দিয়ে ৪ লাখ ৯৯ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে। এ অভিযানে পরিচালনা করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মুহাম্মদ আলী হাসান। অভিযানের সময় প্রশাসনকে সার্বিক সহযোগিতা করেন চট্টগ্রাম র‌্যাব-৭, থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস দল। গত সোমবার প্রথম দিনের অভিযানে ফটিকছড়ি উপজেলার পাইন্দং ইউনিয়নের চামার দিঘি ও সুয়াবিল এলাকায় এবি ব্রিক, জেবি ব্রিক,এসএমবি ব্রিক, ও জেএনবি ব্রিক গুলো ভেঙ্গে দেয়া হয়। এসময় মের্সাস ফাইন ব্রিক মেনুফ্যাকচার হতে ৩ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করেন। অন্য দিকে উপজেলার ব্রিক ফিল্ড গুলো গুড়িয়ে দেবার কারনে চলমান সরকারী বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ ইটের অভাবে বন্ধ হয়ে যেতে পারে। উপজেলার ঠিকাদাররা অন্য উপজেলা হতে ইট নিয়ে এসে ফটিকছড়িতে কাজ করতে ব্যয় বেশী হবে:এ জন্য উন্নয়ন কাজে ধীরগতির সৃষ্টি হবে।

অপর একটি সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় অধিকাংশ ঠিকাদার ব্রিক ফিল্ড গুলোতে অগ্রীম টাকা দিয়ে রেখেছে ইটের জন্য। ফলে ঠিকাদাররা ও পড়েছে বিপদে। তাছাড়া ব্রিক ফিল্ড মালিক সমিতি সরকারী কোন কাজে ইট বিক্রি বন্ধ করার সিদ্ধাতে আসতে পারে বলে সূত্রে জানা গেছে। এদিকে উপজেলা ব্রিক ফিল্ড মালিক সমিতির সভাপতি ও পৌর মেয়র মুহাম্মদ ইসমাইল হোসেন বলেন, সরকারী ভাবে চলমান কাজের জন্য ফটিকছড়িতে প্রায় ১০ কোটি ইটের প্রয়োজন। ফলে উন্নয়ন কাজে বিঘ্ন সৃষ্টি হবে।

তিনি আরো বলেন, হাইকোর্টের রায়ে ব্রিক ফিল্ড বন্ধ করতে বলা হয়েছে; গুড়িঁয়ে দিতে বলা হয়নি। উপজেলায় অতীতে ৫০ টি ইট ভাটা থাকলে ও আর্থিক সংকটের কারনে ১০ টি বন্ধ হয়ে ৪০ টিতে নেমে আসে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com