1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:১৩ অপরাহ্ন

ফটিকছড়িতে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে মামলার হত্যার আসামী সনাক্ত ও গ্রেফতার।

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৫৫ Time View

রফিকুল আলম

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার খিরাম ইউনিয়নের প্রেমপুর গ্রামে সুমন নামে এক রাজমিস্ত্রীর মরদেহ গত ২২ মার্চ পুলিশ উদ্ধার করে।এ সংক্রান্তে থানায় ১৯(৩) ২০২২ ইং অজ্ঞাতনামা উল্লেখ করে মামলা দায়ের করা হয়। এ ঘটনায় অজ্ঞাত নামা হত্যা মামলার আসামি মোঃ মিজান উদ্দিন কে প্রযুক্তির সহতায় গত ১২ এপ্রিল রাতে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদের মুগলটুলী হোটেল মওলা আবাসিক হোটেল থেকে গ্রেফতার করে থানা পুলিশ। পরদিন ১৩ এপ্রিল গ্রেফতারকৃত মিজান চট্টগ্রাম বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী প্রদান করেন।

স্থানীয় ও থানা সূত্রে জানা যায়,গত দুই আড়াই মাস আগে তার পাশ্ববর্তী ভিকটিম সুমন এর সাথে বাড়ীর সীমানা নিয়ে বিরোধ ও তার বাবা মাকে জাদু টুনা করার ফলে মিজান মনে মনে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে। হত্যার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন এর জন্য সে গত দুই মাস আগে বাড়ী ছেড়ে ঢাকা চলে যায় তার বাবা মা ও এলাকার লোকজন জানে যে সে অবৈধ পথে ভারত চলে গেছে। পরবর্তীতে সে ঘটনার ৩ দিন আগে গোপনে তার বাড়িতে আসে এবং সুমনের গতিবিধি লক্ষ্য করে। রাজমিস্ত্রী সুমনের গতিবিধি দেখতে থাকে মিজান। গত ২২মার্চ সন্ধ্যায় মিজান তার বাড়ী থেকে একটি দা নিয়ে সুমনের বাড়ী আসার রাস্তার টিলার নিচে ওৎ পেতে বসে থাকে। তখন রাত সাড়ে ৮ টার দিকে সুমন তার কাজ শেষে ওই টিলার নিচ দিয়ে বাড়ীতে যাবার সময় মিজান তার সামনে দাঁড়ায় এবং সুমনকে জিজ্ঞেস করে তুমি আমার বাবা মা কে কেন জাদুটোনা করছো এই বলে মিজান তার হাতে থাকা দা দিয়ে সুমন কে সজোড়ে মাথার মধ্যে কোপ মারে ; উক্ত দায়ের কোপে সুমন মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।পরে মিজান ব্যবহৃত দা উপর দিকে ঝোপের মধ্যে ছুড়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর রাতেই মিজান চট্টগ্রাম শহরে চলে যায়। ঘটনার পরের দিন সকাল ৮ টার দিকে টিলার নিচে স্থানীয় লোকজন সুমনের মরদেহ দেখে ইউপি সদস্যকে জানায়। সংবাদ পেয়ে থানার এএসপি হাটহাজারী সার্কেল ,ফটিকছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ ও মোবাইল টিম ঘটনাস্থল যায়।

উক্ত হত্যাকান্ডের মামলার তদন্তকারী এস আই নাজমুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও বিভিন্ন দিক বিশ্লেষণ করে মামলাটির আসল রহস্য বের করতে প্রযুক্তির তথ্য নিয়ে হত্যাকান্ডের একমাত্র আসামী মিজানকে গ্রেফতার করে বলে জানিয়ে আরো বলেন,সুমনকে হত্যা করে মিজান রাতে চট্টগ্রাম শহরে চলে যায়। রাতে শহরে নাছিরাবাদ এলাকায় রাত যাপন করে পরদিন ২৩ মার্চ সকালে সে আনোয়ারা উপজেলায় চলে যায়।পরে তার ব্যবহাত মোবাইল সিম বন্ধ করে দেয়। ২৬ মার্চ সে একটি নাম্বার ব্যাবহার করে সেটিও বন্ধ করে দিয়ে রাতে সে ঢাকা চলে যায়। ঢাকায় গিয়ে ওমান যাওয়ার জন্য তার পাসপোর্ট ভিসা লাগিয়ে; সে তার মোবাইলে বিভিন্ন সিম নাম্বার ব্যবহার করতে থাকে। গত ১০ এপ্রিল সে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম আসে ফিঙ্গার দেওয়ার জন্য ও আগ্রাবাদ এস আর ট্রাভেল্স এজেন্সির মাধ্যমে সে ম্যানপাওয়ার ও বিমান টিকেট বুকিং দিয়ে ৩ দিনের জন্য ট্রাভেল এজেন্সি থেকে হোটেল মওলা আবাসিকে ৩২২ নাম্বার রুম বুকিং দেয়। এমতাবস্থায় গত ১২ তারিখে ব্যবহৃত নাম্বারের সূত্র ধরেই ওই রাতেই উক্ত হোটেল থেকে মিজানকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর সে ঘটনার কথা স্বীকার করলে,তাকে নিয়ে হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থলে গিয়ে তার দেখানো মতে হত্যাকান্ডে ব্যাবহৃত দা টিলার ঝোপের মধ্যে থেকে উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত মিজান উদ্দিন(২৩) খিরাম ইউনিয়নের প্রেমপুর গ্রামের জনৈক আব্দুর রাজ্জাকের পুত্র।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com