1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:১৩ পূর্বাহ্ন

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতির নাজিরহাট হালদা নদীর পুরাতন ব্রীজে যানচলাচল বন্ধ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৩
  • ৪২ Time View

রফিকুল আলম :

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরীত চট্টগ্রামের  ফটিকছড়ি-হাটহাজারী সীমান্ত এলাকায় কয়েক বছর আগেই বন্যা ও পাহাড়ি ঢলে দেবে যাওয়া পানির ঢেউয়ের মতো দেখতে  নাজিরহাটস্থ হালদা নদীর পুরাতন ব্রিজের এক পাশের রেলিং ভেঙ্গে পড়েছে। রেলিং ভেঙ্গে যাওয়ায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নাজিরহাট পৌর বাজারের ব্যবসায়ী ও ঈদে কেনাকেটা করতে আসা হাজারো ক্রেতারা। ভেঙ্গে যাওয়া ব্রিজের রেলিং গত ১৭ এপ্রিল পরির্দশন করেছেন ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাব্বির রাহমান সানি ও হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাহিদুল আলম। এসময় ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  ব্রিজের দুইপাশে ঝুঁকিপূর্ণ সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দেওয়ার জন্য নাজিরহাট পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে বলেন এবং চলাচল বন্ধের জন্য নির্দেশ দেন।
এদিকে  ব্যবসায়ীরা বলেন, হালদা নদীর এই সেতুটি অনেক আগে দেবে যাওয়ায় উত্তরাঞ্চলীয় বাণিজ্যিক কেন্দ্র নাজিরহাট বাজারে ব্যবসা-বাণিজ্যে অনেকটা ধস নেমেছে। যদি কর্তৃপক্ষ ব্রিজের উপর দিয়ে চলাচল বন্ধ করে দেয় ঈদের শেষ মুহূর্তে ব্যবসায় আরো ধস নামবে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। ব্রিজ পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন নাজিরহাট পৌরসভার প্যানেল মেয়র মো. আলী, নাজিরহাট পৌরসভার ইঞ্জিনিয়ার রাজীব বড়ুয়া সহ অন্যান্য কাউন্সিলররা ।
নাজিরহাট পৌরসভার প্যানেল মেয়র মো. আলী বলেন, ফটিকছড়ি ও হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ আমরা ভেঙ্গে যাওয়া রেলিং পরিদর্শন করেছি। পরিদর্শন শেষে নির্দেশনা মতে ১৭ এপ্রিল রাতে ব্রিজের উভয় দিকে ষ্টিলের পাটাতন দিয়ে সব ধরণের যানচলাচল বন্ধ করে দিয়ে দুর্ঘটনা এড়াতে নির্দেশনামূলক সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়েছে। সে সাথে ব্রিজে লাইট লাগানো হয়েছে।

জানা গেছে, প্রতিদিন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার হাজারো ছাত্র-ছাত্রীসহ ফটিকছড়ি-হাটহাজারীর কয়েক লক্ষাধিক জনসাধারণ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্রিজের উপর দিয়ে চলাচল করছে। এছাড়া ব্রিজের বিভিন্ন অংশে ফাঁটল দেখা দিয়েছে। নিচের খুঁটি অনেকটা সরু হয়ে গেছে। যে কোন সময় উক্ত ব্রিজ বিধ্বস্ত হয়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। বর্তমানে বৃহত্তর ফটিকছড়ি ও হাটহাজারী উপজেলার ৩ লক্ষাধিক জনসাধারণ চলাচলে অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছে।
বৃটিশ সরকার ১৯১৯ সালে তৎকালীন ডিস্ট্রিকবোর্ড ফটিকছড়ি-হাটহাজারী উপজেলার সীমান্ত এলাকা নাজিরহাটে এ সেতু নির্মাণ করে। স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন পাক হানাদার বাহিনী ডিনামাইড দিয়ে সেতুটির একাংশ ধ্বংস করে দেয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশ সরকার ১৯৭২ সালে সেতুটি মেরামত করে পুনঃ যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল করে। এরপর ২০০৫ সালে ব্রিজটি পুনঃমেরামতের কাজ হলেও ২০০৮ সালে সওজ কর্তৃপক্ষ ঝুঁকিপূর্ণ সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দেয় ব্রিজে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com