1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৭:১২ পূর্বাহ্ন

লোহাগাড়ায় টানা ৩দিন বন্যহাতির তান্ডবে ব্যাপক ক্ষতি জমির ফসল, আহত-২

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৬ আগস্ট, ২০২১
  • ২৪৭ Time View

ইসমাইল হোসেন সোহাগ, বিশেষ প্রতিনিধি

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার চরম্বা ইউনিয়নে টানা ৩ দিন পর্যন্ত বন্যহাতির তান্ডবে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে জমির ফসল। এসময় বন্যহাতির আক্রমণ থেকে নিজেদের’কে রক্ষা করতে গিয়ে আবুল কালাম ও আব্দুল মালেক নামে দুই কৃষক গুরুতর আহত হয়েছে।

গত ১১ থেকে ১৩ আগস্ট”২০২১ইং চরম্বা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের টংকাবতী বনবিভাগের পূর্ব পাশে খামারের চর ও ভরার চর নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সরেজমিনে গেলে অসহায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবার গুলো জানান, আমাদের দীর্ঘদিনের ভোগদখলীয় জমির উপর বিভিন্ন ধরনের কৃষি কাজ করে আসতেছি। সম্প্রতি গত ১১ থেকে ১৩, আগস্ট টানা তিন দিন পর্যন্ত ২০-২৫ টি বন্যহাতির তান্ডবে ৮জন কৃষকের প্রায় (৫.একর) ফসলি জমির (যেখানে চাষ করা হয়েছে ধান, তিঁত কড়লা, সিম, শসা সহ বিভিন্ন ধরনের ফসলের ) ব্যাপক ক্ষতি সাধন করেছে। যার মূল্য প্রায় ৫-৬ লক্ষ টাকা। এসময় বন্যা হাতির আক্রমণ থেকে বাঁচার চেষ্টা করলে আবুল কালাম ও আব্দুল মালেক নামে দুই কৃষক গুরুতর আহত হয়।

এভাবে প্রতি রাতেই বন্যহাতির দল প্রবেশ করে ধান সহ বিভিন্ন ধরনের ফসল খেয়ে ও নষ্ট করে ফেলেছে। এ অবস্থায় আগুন জ্বালিয়ে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হচ্ছেন বলে জানান তারা। তারা আরও জানান, আমরা বিভিন্ন এনজিও, ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে কোন রকম চাষ করে সংসার চালায় আসতেছি। এখন আমাদের মৃত্যু ছাড়া কোন উপায় নেই। এই পর্যন্ত আমরা কোন ধরনের কারও সহযোগিতা পাইনি। আমাদের পাশ্ববর্তী টংকাবতী বনবিভাগ’কে একাধিক বার বলার পরেও তাদের কোন ধরনের সহযোগিতাও পাইনি বলেও জানান অসহায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবার গুলো। স্থানীয়’রা জানায়, একদল বন্যহাতি চরম্বা ইউয়িনের টংকাবতী খামারের চর ও ভরার চর এলাকায় প্রতিনিয়ত তান্ডব চালায় যাচ্ছে। গত তিন রাত তান্ডব চালিয়ে অসহায় কৃষকদের বিভিন্ন ধরনের ফসলি সবজি ক্ষেত সহ বিভিন্ন ধরনের ফসলি জমির ব্যাপক ভাবে ক্ষতি করেছে।

এসময় স্থানীয়রা টংকাবতী বনবিভাগ’কে জানালে তারা কোন সহযোগিতা করে নাই। বন্যহাতি গুলো দিনের আলোতে পার্শ্ববর্তী পাহাড়ে অবস্থানের পর রাতের আঁধার নামলেই লোকালয়ে নেমে পড়ে। এসময় বন্যহাতির আক্রমণ থেকে নিজেদের কে বাঁচাতে গিয়ে আবুল কালাম ও আবদুল মালেক গুরুতর আহত হয়েছে। এছাড়াও মোঃ ইয়াকুব হোসেন, আবুল কালাম (আহত), আরেফা বেগম, আব্দুল মালেক (আহত), তৈয়ব আলী, আবু তাহের, আব্দুল মোনাফ জমির ফসল ও ধান ক্ষেত সহ বিভিন্ন ফলদ বনজ বাাগানের ব্যাপক ক্ষতি করেছে। বর্তমানে ক্ষতিগ্রাস্ত আসহায় কৃষক পরিবার গুলো জীবন ঝুঁকি নিয়ে মানবতার জীবন-যাপন করতেছে।

এ বিষয়ে চরম্বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাস্টার শফিকুর রহমান জানান, ধারণা করা হচ্ছে তাদের বাসস্থান ও খাদ্যের অভাবে বন্যহাতি গুলো লোকালয়ে তান্ডব চালাচ্ছে। তবে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবার গুলোর খোঁজ-খবর নিচ্ছে বলেও জানান তিনি। বন্যহাতির আক্রমণের বিষয়ে টংকাবতী বনবিভাগের বন কর্মকর্তা আব্দুল হালিমের কাছথেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি গত ১১ আগস্ট ছুটিতে বাড়িতে আসছি। এবিষয়ে আমাকে কেউ জানায় নাই। বন্যহাতির আক্রমণের কথা আপনাদের মাধ্যমে শুনেছি। তবে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবারের খতিয়ানভুক্ত জায়গা হয়ে থাকে তাহলে কর্তৃকপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে জানান তিনি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান হাবীব জিতু বলেন, বন্যহাতির আক্রমণের ব্যাপারে আমাকে কেউ জানায় নেই। তবে খোঁজ-খবর নিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবার গুলোকে ক্ষতি পূরান দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com