1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৬:১৭ অপরাহ্ন

লোহাগাড়ায় বেরিয়ে এল সেই মেম্বারের ‘হুকুমে’ কাবিন ছাড়াই আকদ পড়ানো সেই ছাত্রীর দুই জন্মসনদ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৯ আগস্ট, ২০২০
  • ২১৬ Time View

খোকন সুশীল,লোহাগাড়া:

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার পুটিবিলা ইউপি মেম্বার মোহাম্মদ ইসহাকের হুকুমে কাবিন ছাড়াই মসজিদে আকদ পড়ানো সেই মাদরাসা ছাত্রীকে ভিন্ন ভিন্ন তারিখ দেয়া দুটি জন্মসনদ অবশেষে বেরিয়ে এল।

আর সেই জন্মসনদ দুটি ইস্যুতে মূখ্য ভূমিকা পালন করেছে পুটিবিলা ইউনিয়ন পরিষদের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার মোহাম্মাদ ইসহাক। ১ম জন্মসনদ পাওয়া যায় ওই মাদরাসা শিক্ষার্থীর অধ্যায়নরত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গৌড়স্থান অাখতারুল উলুম দাখিল মাদরাসায় এবং ২য় জন্মসনদ পাওয়া যায় ইউপি মেম্বার মো: ইসহাকের কাছ থেকে। এক প্রশ্নের জবাবে ১ম জন্মসনদ দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে ইউপি মেম্বার মো: ইসহাক বলেন, এখন যুগ খারাপ, তাই মেয়েদের যত অাগে বিয়ে দেয়া যায় তত ভাল।

এজন্য অাগের দেয়া জন্মসনদে মেয়ে সরকারী অাইনে প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়ায় বিয়ের জন্য নতুন করে অাবার জন্মসনদ করেছি। এদিকে, পুটিবিলা ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক ৯বম শ্রেণীতে পড়ুয়া শিক্ষার্থীর ভিন্ন ভিন্ন জন্ম তারিখ দেখিয়ে পৃথক দুটি জন্মসনদ ইস্যুর ঘটনায় এলাকায় বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় পুটিবিলা ইউনিয়ন পরিষদের এহেন নিয়মবহির্ভূত কর্মকান্ডে এলাকাবাসীর মাঝে রীতিমতো হাস্যরসের খোরাক হয়েছে।

ছাত্রীটির আকদ পড়ানো ইমাম মাওলানা খালেক হোসেন জানান, পুটিবিলা ইউনিয়নের স্থানীয় মেম্বার মোহাম্মাদ ইসহাকের হুকুমেই মেয়েটির বিয়ের অাকদ পড়িয়েছি। তিনি অারো জানান, ইসহাক মেম্বার আমাকে বলেছেন কোন সমস্যা হবেনা। অনলাইনে নতুন জন্মনিবন্ধনে মেয়ের বয়স ১৮ বছর ৭ মাস করে এনেছি। তবে তিনি অামাকে অাগের জন্মসনদের ব্যাপারে কিছুই জানাইনি। পুটিবিলা ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী অাবদুস সোবাহান বলেন, অামার মহুরীর মাধ্যমে ছাত্রীটির বিয়ের বিষয়ে জানতে পেরে আমি তার পরিবারের সাথে কথা বলেছি। তারা আমার কাছে স্বীকার করেছেন মেয়েটি স্থানীয় গৌড়স্থান অাখতারুল

উলুম দাখিল মাদরাসার ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী। এছাড়াও আমি জানতে পেরেছি মেয়েটি বয়সে ছোট। তাই অামি দেশের প্রচলিত অাইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে মেয়েটির বিবাহ রেজিষ্ট্রেশন করেনি এবং অাকদ বয়কট করেছি। পরে জেনেছি পার্শ্ববর্তী মসজিদের ইমামকে ডেকে এনে কাবিন ছাড়াই মেয়েটির অাকদ পড়িয়েছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে গৌড়স্থান অাখতারুল উলুম দাখিল মাদরাসার সুপার মাওলানা ফরিদুল আলম বলেন, তাসফিয়া আক্তার আমাদের মাদরাসার ৯ম শ্রেণীর নিয়মিত ছাত্রী। সে মাদ্রাসায় ভর্তির সময় জমা দেয়া জন্ম সনদ, রেজিষ্ট্রেশন কার্ড ও মাদরাসায় সংরক্ষিত রেজিস্ট্রার বই অনুযায়ী তার জন্ম তারিখ ২০০৫ সালের ১ জানুয়ারী। তিনি আরো বলেন, তাসফিয়া আমাদের মাদরাসার নিয়মিত ছাত্রী।

অল্প বয়সে তার বিয়ের খবর শুনে আমি খুব মর্মাহত হলাম। এ বিষয়ে জানতে পুটিবিলা ইউপি চেয়ারম্যান মো: ইউনুছের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মাদরাসায় নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্রী তাসফিয়ার বিয়ে কিংবা আকদ অনুষ্টানের বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে তাসফিয়ার নামে দুটি জন্ম সনদ ইস্যুর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাও আমি অবগত নই। উল্লেখ্য: গত ২০ জুলাই পুটিবিলা সোনাইবর পাড়া জামে মসজিদে মিয়ারবর বাড়ীর অাবুল হোসেনের ছেলে মো: মিজানুর রহমানের সাথে একই ওয়ার্ডের ভেল্লাবর বাড়ীর প্রবাসী মোহাম্মদ অালীর মেয়ে স্থানীয় গৌড়স্থান মাদ্রাসার ৯ম শ্রেণীর নিয়মিত ছাত্রী তাসফিয়া অাক্তারের অাকদ অনুষ্ঠানের অায়োজন করা হয়। ইতিমধ্যে দেশের প্রচলিত বিবাহ আইন অনুযায়ী মেয়েটির কাঙ্ক্ষিত বয়স না হওয়া এবং বাল্যবিয়ের বিষয়টি জানতে পেরে পুটিবিলা ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত নিকাহ রেজিস্ট্রার এন্ড কাজী অাবদুস সোবাহান বিয়েটি রেজিস্ট্রেশন করতে অপারগতা প্রকাশ করে আকদ অনুষ্টান বয়কট করেন।

জরুরী কাজ থাকার অজুহাতে ওই মসজিদের দীর্ঘদিনের ইমাম মাওলানা নুরুল আলমও আকদ অনুষ্টান এড়িয়ে যান। পরে স্থানীয় ইউপি মেম্বার মোহাম্মদ ইসহাকের হুকুমে নিকাহ রেজিস্ট্রার কিংবা কাবিন ছাড়াই ছাত্রীটির আকদ পড়ান পার্শ্ববর্তী গৌড়স্থান চৌধুরী পাড়া জামে মসজিদের ইমাম খালেক হোসেন। এর আগে, মেয়েটি অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় বর-কনে দুই পক্ষই স্থানীয় মেম্বার মো: ইসহাকের শরণাপন্ন হন। এসময় মেম্বার নিজেকে জাহির করতে ছাত্রী তাসফিয়া আক্তারের নামে গত ১৬ জুলাই বয়স বাড়িয়ে (জন্ম তারিখ-১০ ডিসেম্বর ২০০১) নতুন একটি জন্মসনদ ইস্যু করান। অথচ বিগত ২০০৮ সালের ২ জানুয়ারীতেও মেয়েটির নামে জন্মসনদ ইস্যু করেছিল পুটিবিলা ইউনিয়ন পরিষদ।

এসময় ইস্যুকৃত জন্মসনদে তার জন্ম তারিখ ২০০৫ সালের ১ জানুয়ারী। সাড়ে ১১ বছরের ব্যবধানে মেয়েটির বয়স বাড়লো ৪ বছর। আবার সাড়ে ১১ বছর পূর্বে ইস্যুকৃত জন্মসনদে মেয়েটির নাম-ঠিকানা বিস্তারিত উল্লেখ থাকলেও গত ১৬ জুলাই ইস্যুকৃত জন্মসনদটিতে মেয়েটির গ্রাম, পাড়া, ওয়ার্ড ও ডাকঘর গোপন করা হয়েছে।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলার অন্য ইউনিয়ন পরিষদে কর্মরত এক সচিব বলেন,পরিষদের ১ নং নিবন্ধন বহিতে শুধুমাত্র ২০০৭ সালের নিবন্ধন করা জন্মসনদ থাকার কথা এবং এগুলো অনেক অাগে অনলাইন হয়েগেছে। কিন্তু ২০১৪ সালের নিবন্ধন করা জন্মসনদ কিভাবে ১ নং নিবন্ধন বহিতে দেখিয়ে নতুন জন্মসনদ দিল বুঝতে পারছিনা।

এভাবে জন্মসনদ ইস্যু করার বিষয়টিতে বড় ধরনের জালিয়াতি হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। এব্যাপারে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো: ইলিয়াস হোসেনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন,বিষয়টি দেখছি। এ বিষয়ে তদন্ত করে দ্রুত অাইনগত ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় ইউএনও’কে নির্দেশ দেয়া হবে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com