1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০২:৫৫ পূর্বাহ্ন

সাতবাড়ীয়া নগর পাড়ার লিপি আক্তারের গরুর খামারের গল্প

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৭ জুলাই, ২০২০
  • ২৯৫ Time View

চাটগাঁইয়া খবর প্রতিবেদন

সাতবাড়ীয়া মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি লিপি আক্তার সংসারের কাজ সামলিয়ে গত ৮/৯ বছর থেকে প্রথমে ১টি দুগ্ধ জাতের গবাদি পশু নিয়ে লালন পালনের পর পরবর্তী বছরে আরো ৬/৭টি দুগ্ধ জাতের গরু নিয়ে তার ছোট আকারের খামারের যাত্রা শুরু করেছিলেন। তারপর থেকে ওই নারীকে পিছনে ফিরে থাকাতে হয়নি। তার স্বামী আকতারের অনুপ্রেরণায় পরের বছর কোরবানী ঈদে ৪/৫ গরু বিক্রয়ের পর গত বছর ওই খামার থেকে ৩০টি বলদ গরু বিক্রি করে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা আয় করেন।

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে এ বছর লিলি আক্তারের খামারে মাত্র ১১টি বলদ গরু কোরবানীর ঈদে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করেছেন। ইতিমধ্যে বাড়ী থেকে ২/৩টি গরু কোরবানী দাতারা ক্রয় করে নিয়ে গেছেন বলেও জানা গেছে।

সরেজমিন পরিদর্শনে ২৬ জুলাই সাতবাড়ীয়া নগর পাড়ার মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি লিপি আক্তার জানান, ৮/১০ বছর আগে ১টি দুগ্ধ জাতের গবাদি পশু ক্রয় করার পর আমার স্বামী আকতার হোসেনের সহযোগীতায় পরবর্তীতে বছরে আরো ৬/৭টি দুগ্ধ গাভী নিয়ে খামারের যাত্রা শুরু করেছিলাম। মা’শা আল্লা পরবর্তী বছর থেকে ৮/৯টি করে এবং এভাবে গত ২০১৯ সালে কোরবানী ঈদে ৩০টির মত বলদ গরু প্রায় ৪০লক্ষ টাকা বিক্রি করেছেন। এছাড়া বিভিন্ন বিয়ে,মেজবানসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য তার খামার থেকে অনেক গরু বিক্রি করছেন। বছরও ১১টি বলদ গরু কোরবানী ঈদে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করেছেন। তিনি বলেন, বৈশ্বিক মহামারীর জন্য যদি এবারে বিক্রির জন্য প্রস্তত বলদ গরু গুলো বিক্রি করতে না পারলেও আগামী বছরের জন্য রেখে দেওয়া যাবে। কারণ তিনি প্রতিদিন বাড়ীর পাশর্^বর্তী ক্ষেত থেকে কাঁচা ঘাস, আখ ক্ষেতের পাতা, ভূষি, খোরা, খড়সহ যাবতীয় পুষ্টিকর খাদ্য দিয়ে মোটা তাজা করেছেন। কোন ধরণে এন্টিবাইটিক ব্যবহার করেননি। যার ফলে পরিবেশ পরিস্থিতে বিক্রি করতে না পারলেও তার দুঃখ হবে না। তবে সঠিক মূল্যে পাওয়া যাবে কিনা এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার খামারে তদারকি করার জন্য ৫ আগে পর্যন্ত মাসিক বেতন ধরে ৪ জন শ্রমিক খামারের দায়িত্বে নিয়োজিত রেখেছিলেন এবং শ্রমিকের মূল্যে ও যাবতীয় খরচ বিক্রি করে তোলা যাবে কিনা সন্দেহ রয়েছে। তবে এবারে কোরবানী হাটে ৪টি বড় বলদ গরু বিক্রি করবেন প্রায় ৯/১০ লক্ষ টাকা মধ্যে। এছাড়া বাকীগুলো ১ লাখের মধ্যে বিক্রি করতে পারবে সবমিলে ২০/২২ লক্ষ টাকার গরু বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে তার খামারে গবাদি পশুর পাশাপাশি নতুন ভাবে সংযুক্ত করেছেন দেশীয় উন্নতমানের ছাগল, মুরগি, কবুতরের খামার। কবুতরে সিরাজী, পঞ্চিরাজ, মুরগীতে আছিঁল, তিপতাজ,বাহমা, গারমাসহ দেশীয় মুরগি খামারে লালন-পালন করছেন। বিশেষ করে গারমা মুরগির একটি বাচ্চার দাম পাঁচ হাজার টাকা। এ মুরগী ১মাস অন্তর ৮টি করে ডিম পাড়ে। তা দেশীয় মুরগীকে দিয়ে বাচ্ছা ফুটানো হচ্ছে। এই উন্নতমানের জাত কিভাবে সংগ্রহ করতে চাইলে তিনি বলেন,ফেইসবুক, ইউটিব ও অনলাইনের মাধ্যমে অর্ডার দিয়ে সংগ্রহ করে খামার গড়ে তুলছেন এবং দক্ষিণ চট্টগ্রামে এ প্রথম গারমা মুরগীর চাষ হচ্ছে তিনি মনে করছেন।
লিপি আকতারে স্বামী আরেক মৎস্য খামারী আকতার হোসেন বলেন, সাতবাড়ীয়ায় ৮/১০টি এলাকায় পুকুর লাগিয়ত নিয়ে সাফল্যের সাথে মৎস্য খামার করে যাচ্ছেন। লিপি আকতারের সাফল্য নিয়ে আকতার হোসেন বলেন, আমার স্ত্রী ১টি দুগ্ধ গাভী নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলেন এভাবে তার স্ত্রীর খামারে বর্তমানে ৩৮/৪০টি গরু রয়েছেন। গরু পালনের পাশাপাশি এখন বেশ কিছু উন্নতমানে বিভিন্ন জাতের মুরগী,ছাগল,কবুতরেও খামার গড়ে তুলেছেন। তার এমন সাফল্যতে তিনি খুশি হয়ে বলেন, তার ইচ্ছাশক্তি কারণে আজ সেই সাফল্য অর্জন করেছেন। এমনভাবে স্বামীর সাথে স্ত্রীরাও বিভিন্ন কাজে উদ্যোগ গ্রহণ করলে দেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাবে। তথা পরিবারে অভাব অনটন দুর হবে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com