1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:০১ অপরাহ্ন

সূর্যখোলা খালে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ, স্থাপনা ভেঙ্গে চলাচলের পথ অবমুক্ত করল কাউন্সিলর দীলিপ চৌধুরী

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৩৭ Time View

প্রদীপ শীল, রাউজানঃ
রাউজান পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের সুর্যখোলা বিলের উপর দিয়ে বিকল্প করা সড়ক ও পানি নিস্কাসনের খাল দখল করে সীমানা প্রাচীন নির্মাণ করছে প্রবাসী নুরুল আলম নামে এক ব্যক্তি। ২৩ এপ্রিল শনিবার খাল দখলের খবর পেয়ে স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর এডভোকেট দীলিপ কুমার চৌধুরী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়। সরোজমিন পরিদর্শন কালে দেখা গেছে, সূর্যখোলার কৃষি জমিতে মাটি ভরাট করে জমির চার পাশে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করেছেন নুরুল আলম। অপরদিকে দীর্ঘদিন ধরে ফকির হাট বাজারের থানার মুখের ব্রীজ দিয়ে বর্ষা মৌসুমে রাউজান ফকির হাট বাজার, সাপলঙ্গা, শাহানগর, গনী হাজী পাড়া এলাকার পানি প্রবাহিত হয়। অনেক সময় টানা বৃষ্টির পানিতে সূর্যখোলা বিলের উপরদিয়ে পানি প্রবাহিত হয়ে রাঙ্গামাটি সড়কের উপর দিয়ে গড়িয়ে পড়ে এলাকায় বন্যায় প্লাবিত হয়। তখন এলাকায় জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয়। এ দুর্ভোগ থেকে পৌরবাসীকে মুক্তি দিতে রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ ফকির হাট বাজারের রাউজান থানা রোডের ব্রীজ থেকে রাউজান উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিস পর্যন্ত ভরাট হয়ে যাওয়া পানি চলাচলের খাল খনন করেন। মেয়রের খনন করা খাল দখন নিতে প্রবাসী নুরুল আলম সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করছে। খাল দখল করে সীমানা প্রাচীর নির্মান করায় বর্ষার মৌসুমে পানি চলাচলের প্রবাহ বন্ধ হয়ে জলবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে প্রবাসী নুরুল আলমের কাছে মোবাইল ফোনে বার বার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে রাউজান পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এডভোকেট দীলিপ কুমার চৌধুরীর বলেন, আমি ঐ স্থানে গিয়ে পরিদর্শন করে রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী ও রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজকে ঘটনাটি অবহিত করি। সাংসদের নির্দেশে আমি নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিয়েছি। তিনি জানান, নুরুল আলম শুধু খাল দখল করেনি, তিনি খালে পাড় দিয়ে মানুষের চলাচলের পথ দখল করেছিল। প্রাথমিক ভাবে খালের পাড়ের স্থাপনা ভেঙ্গে দিয়ে চলাচলের পথ অবমুক্ত করা হয়েছে। পরবর্তীতে মেয়রসহ আমরা পরিমাপ করে খালের ভিতর নির্মাণ করা সীমানা প্রচীর ভাঙ্গার ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি জানান, খালের পাড় দিয়ে একটি বিকল্প সড়ত করার পরিকল্পনা রয়েছে। ইতিমধ্যে জেলা পরিষদ থেকে অর্থ বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। বরাদ্ধ দেওয়া টাকায় কিছু অংশে ব্রীক সলিন সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন, আমি সরোজমিনে পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। খনন করা খালে কোন স্থাপনা নির্মাণ ও পানি চলাচলের কোন বাঁধা সৃষ্টি করলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com