1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৯:০৯ অপরাহ্ন

সেতু না থাকায় বাঁশখালীতে খালের পানিতে লাশ পারাপার

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
  • ৭৬৭ Time View

মোহাম্মদ বেলাল উদ্দিন, বাঁশখালী:

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার পুঁইছড়ি ইউনিয়ন। জমিদারের অভয়ারণ্য হিসেবে সমধিক পরিচিত এই ইউনিয়নটি যুগের পর যুগ অবহেলিত। উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী মোহাম্মদ গালিব সাদলীর বাড়িও এই ইউনিয়নে। গালিব সাদলীর আপন চাচা সোলতানুল গণী চৌধুরী লেদু মিয়া ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান।

বর্তমানে শাসনভার চাচা-ভাতিজা দু’জনের হাতে। প্রেমবাজার টু সরলিয়া বাজার সড়ক পাড়ি দিয়ে যেতে হয় তাঁদের বাড়িতে। কিন্তু সড়কটি এখন ডোবায় পরিণত হয়েছে। এতে জনসাধারণের ভোগান্তির শেষ নেই। এরই মধ্যে গতকাল ওই ইউনিয়নের পূর্ব পুঁইছড়ি কাচারিপাহাড় এলাকায় ঘটে গেল এক হৃদয়বিদারক ঘটনা। ওই এলাকায় একটি সেতু না থাকায় শাহ্ আলম নামের এক ব্যক্তির লাশ পারাপার করা হলো খালে নেমে। গত ২০১৮ সালে এমন ঘটনা একই ইউনিয়নের সরলিয়া ঘোনা এলাকায়ও ঘটেছিল।

শনিবার (১১ জুলাই) এলাকার বাসিন্দা ফিরোজ আহমেদ চৌধুরীর পুত্র শাহ আলম চৌধুরীর মৃত্যুর পর আবারও পুঁইছড়ির কাচারিপাহাড় এলাকায় একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলো। গত শুক্রবার রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শাহ আলম চৌধুরী নগরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু বরণ করেন।

পিতা-মাতার কবরের পাশে দাফন করার জন্য তাদের ‌পারিবারিক জামে মসজিদের কবরস্থানে দাফন করার জন্য যান। শনিবার বাদে আসর পূর্ব পুইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এই ব্যবসায়ীর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু তাঁর বাড়ি আর জানাজার মাঠের মাঝখান দিয়ে বয়ে যাওয়া খালটিতে কোনো সেতু না থাকায় ভোগান্তিতে পড়তে হয়। জানাজায় অংশ নিতে গ্রামবাসীকে বাঁশের তৈরি ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকো দিয়ে পার হতে হয়।

যেটি বেশ নরবরে। তাই লাশ নিয়ে যাওয়া হয়েছে হাতের উপর ভার করে পানিতে ভাসিয়ে। এমনই এক দৃশ্য দেখে মানুষ আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ে। অভিযোগ রয়েছে, বর্ষাকালজুড়ে এভাবে ঝুঁকি নিয়ে এই পথ দিয়ে হাজারো মানুষকে যাতায়াত করতে হয় ।‌ সেতু না থাকায় বর্ষাকালীন সময়ে এলাকার কোমলমতি শিক্ষার্থীদের স্কুলে আসা-যাওয়াও বন্ধ হয়ে যায়। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পূর্ব পুঁইছড়ির ৫নং ওয়ার্ডের কাচারিপাহাড় এলাকায় কেউ মারা গেলে খালের উপর লাশ ভাসিয়ে কবরস্থানে নিতে হয়। ওই এলাকার কেউ মারা গেলে বার বার উঠে আসে এমন সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়।

বছরের পর বছর চলে গেলেও এই সমস্যার কোন সমাধান হয়নি। হৃদয়ের দরদমাখা অশ্রুসিক্ত নয়নে বাবার লাশ এভাবে পারাপার করার কথা বলতে গিয়ে সহকারী উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মায়মুনুর রশিদ বলেন, ‘বছরের পর বছর আমাদেরকে এভাবে কষ্ট করে যেতে হচ্ছে। সেতুর জন্য বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরাঘুরি করেও কাজ হয়নি।’

স্থানীয় ইউপি সদস্য খাইনে আলম বলেন, ‘আমাকে এ বিষয় তারা কখনো কিছুই জানায়নি। আমাকে যদি কখনো বলতো তাহলে মাসিক মিটিংয়ে বলে তাদের জন্য একটা সেতুর ব্যবস্থা হয়তো করতে পারতাম বলে দাবি তার।’

এ ব্যাপারে পুঁইছড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুলতানুল গনি চৌধুরী প্রকাশ লেদু মিয়ার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com