1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১১:৪৪ অপরাহ্ন

স্কুল জীবনের বন্ধু আবু বকর ছিদ্দিকের বিপদে পাশে দাঁড়ালেন এসপি রেজাউল মাসুদ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৭৪ Time View

ইসমাইল হোসেন সোহাগ, বিশেষ প্রতিধিনি

বর্তমানে আমাদের সমাজে মানুষের মধ্যে নানা ধরনের বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। গড়ে ওঠে পরস্পরের মধ্যে শান্তি সম্প্রীতির বন্ধন। বাবা মায়ের পরে যে মানুষটি বিপদের সময় সবচেয়ে বেশি হাত বাড়িয়ে দেয় তা হল বন্ধু। আমাদের ছোটবেলা থেকেই বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। ছোট বেলা থেকেই একটা সময় আমরা যখন জীবনকে বুঝতে শেখে তখন থেকেই বন্ধুত্ব জীবনের জন্য অপরিসীম হয়ে দাঁড়ায়। বন্ধু আসলে বিপদে সময় আমরা নির্দ্বিধায় একে অন্যের পাশে দাঁড়াতে পারি। বিপদে বন্ধুর পরিচয় এই কথাটি আজকাল প্রায় বলতে শোনা যায়। কিন্তু সত্যি কারের বন্ধু খুব বেশি পাওয়া যায় না। যখনই বিপদে পড়বেন তখন আসল বন্ধু দেখলে চিনতে পারবেন তখন সত্যি কারের বন্ধু দের আসল রূপ বোঝা যায় এবং প্রকাশ পায়।

জীবনের যেকোনো সমাস্যা বা বিপদে পরলে নানা ধরনের মানসিক চাপ তৈরি হয়। এই মানসিক চাপ কিছুটা হলেও কমানো যায় যদি আপনি মনের কথাটা গল গল করে নির্দ্বিধায় কাউকে খুলে বলতে পারেন।
আপনি যখন ভালো অবস্থানে থাকবেন সুসময়ে অনেক বন্ধু খুঁজে পাবেন কিন্তু দুঃসময়ে সত্যি কারের বন্ধু কজনই বা মিলে। জীবনে বেঁচে থাকতে হলে সত্যিকারে বন্ধু যে কতটা প্রয়োজন তা বলার মত ভাষা নেই। তাই পৃথিবীতে প্রচলিত হয়েছে আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবস।

আমাদের সমাজে একটি কথা প্রচলিত রয়েছে, বন্ধুহীন জিবন হল লবণ ছাড়া তরকারির মত। এই কথাটি চিরন্তন সত্য। পৃথিবীতে বন্ধুত্ব নিয়ে বিখ্যাত ব্যক্তিদের অনেক মত এবং সংখ্যা রয়েছে। পৃথিবীর সব বড় বড় মানুষেরাই এক বাক্যে স্বীকার করে নেবে সহজ কথা সহজ ভাষায় বন্ধুত্বের সংজ্ঞা দেয়া সম্ভব নয়। বন্ধু হল মানুষের মানুষের মধ্যে হৃদয়ের অতৃপ্ত অনুভূতি সম্পর্ক।

সময়ের পরিক্রমায় পদমর্যাদা বা সামাজিক অবস্থানেও যারা কখনো বাল্যবন্ধুদের সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে বদলান না তারাই আসল বন্ধু। এমনই এক বন্ধুত্বের মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডির সাইবার ক্রাইম শাখার কর্মরত মানবিক, জনবান্ধব, দায়িত্বশীল বিশেষ পুলিশ সুপার (এসপি) মো. রেজাউল মাসুদ।

এই কর্মকর্তা তার স্কুল জীবনের বন্ধু কনস্টেবল আবু বকর সিদ্দিকের বিপদে কেবল আশ্বাস দিয়ে নয়, বাস্তবিক ভাবেই তার বিপদে পাশে দাঁড়িয়েছেন। যে কারণে ওই বন্ধুর পরিবারেও প্রশান্তি নেমে এসেছে।

গত ১৩ সেপ্টেম্বর”২০২১ইং সোমবার দুপুরে নিজের ফেসবুক টাইমলাইনে একটি পোস্ট দেন এ পুলিশ কর্মকর্তা।

‘বিসিএস এর রেজাল্ট যেদিন বের হয় সেদিন কীভাবে জানি সে খবর পেয়ে যায়। ফোনের ওপ্রান্ত থেকে খুশিতে তার উল্লাস-উচ্ছ্বাস ছিল দেখার মতো। মনে হচ্ছিল যেন সেই চাকরি পেয়েছে। বলতেছিল তুমি পুলিশে এএসপি হয়েছো, একসময় এসপি হবে, ডিআইজি হবে। কী যে ভালো লাগছে আমার তোমাকে বুঝাতে পারব না, মনে হচ্ছে যেন আমিই এএসপি হয়েছি। সে বলতেছিল আমাদের এলাকায় শিক্ষক, ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার, আর্মি অফিসার অনেক রয়েছে, কিন্তু বিসিএস পুলিশ কর্মকর্তা একেবারেই নেই, তুমি আমাদের এই অভাবটা পূরণ করলে। কথাগুলো সে এক নিঃশ্বাসে বলে ফেলল।

সিদ্দিক ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের নিউমার্কেট থানার সর্বকনিষ্ঠ সদস্য। আমরা ছেলেবেলার বন্ধু, প্রাইমারি আর হাইস্কুল একইসাথে পড়েছি। সুদর্শন সুঠাম চেহারার সিদ্দিক এসএসসি পাশ করার পর পুলিশে যোগ দেয়। একজন টগবগে যুবক দ্রুত চাকরি পেয়ে এলাকায় পুলিশ সিদ্দিক হিসেবে পরিচিতি পায়। সবাই তাকে চিনে, মানুষের প্রয়োজনে সাধ্যমত কমবেশি সে পাশে দাঁড়ায়। ইন্টারমিডিয়েট এবং ঢাকা ভার্সিটি পড়াকালীন সময়েও আমার সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখে সে। পনের বছর পুলিশি চাকরিকালীন সময়ে তার সাথে অনেক দেখা হয়েছে কথা হয়েছে, তার এলাকার সমস্যায় আমাকে ইনভলভ করেছে। তার সঙ্গে আমার সম্পর্ক সেই ছেলেবেলার মতনই। আমার বেশ কিছু বন্ধুবান্ধব যারা সাব-ইন্সপেক্টর/সার্জেন্ট থেকে ইন্সপেক্টর হয়েছে, আবার অনেক বন্ধু বিসিএসের জুনিয়র তাদের সাথে সাক্ষাৎ কিংবা কথা হলে আমি সহজ করে দিলেও তাদের ভিতর একটা অস্বস্তি ভাববাচ্য কাজ করে তারা আমায় আপনি বলবে, না স্যার বলবে না তুই বলবে দ্বিধায় থাকে!

কিন্তু কনস্টেবল বন্ধুটির মাঝে বিন্দু পরিমাণ ভাবনা আসতে দিতাম না, যাতে সে কখনোই মনে না করে তার সামনে আমি একজন বড় কর্মকর্তা, সে যেন সবসময় ধারণা রাখে আমি তার ছেলেবেলারই বন্ধু। অতি সম্প্রতি সে ময়মনসিংহ বিভাগ থেকে সিলেট বিভাগে বদলির আদেশ পান। তার পরিবার সন্তান সন্ততি নিয়ে ময়মনসিংহ বসবাস করেন। জামালপুর গ্রামের বাড়ি মা-বাবা ভাই-বোনসহ অনেকের প্রয়োজনে মুহূর্তেই পাশে দাঁড়ান। সিলেট বিভাগে বদলির খবরে দারুণ অসহায় বোধ করে এবং ভেঙে পড়ে সে। চারদিকে জোর চেষ্টা-তদবির দৌড়িয়েও বদলি বাতিলে ব্যর্থ হয় সে। তার সমস্যার কথাটা অবশেষে আমায় জানায়। পুলিশের জুনিয়র সদস্যদের জেলার ভেতরে বদলির জন্য সহজে চেষ্টা করা যায় কিংবা বিভাগের মধ্যেও ডিআইজি স্যারকে বলা যায়। কিন্তু এক বিভাগ থেকে আরেক বিভাগে বদলি আইজিপি স্যারের অফিস তথা পুলিশ সদর দপ্তর করে থাকে, সেজন্য এ কাজটা সবসময়ই কঠিন থেকে কঠিনতর হয়। নিয়তি আর ভাগ্য বলে মেনে নেয় অনেকেই। সিদ্দিক অনেক জায়গায় যোগাযোগ করেও ব্যর্থ হয়।

আমি পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে যোগাযোগ করি। সাত দিনের ভেতরেই সিদ্দিকের কাজটা হয়ে যায়। আমি আগেও এরকম কাজে চেষ্টা করেছি অনেককে বদলি করিয়েছি, কিন্তু এটা এত দ্রুত সাত দিনের ভেতরে হয়ে যাওয়ায় আমি তাজ্জব বনে আশ্চর্য হই আবার লজ্জাও বোধ করি, ফোন না করে শুধুমাত্র টেক্সটে থ্যাংকস জানাই।

পুলিশ সদর দপ্তরের কনসার্নড ডেস্ক অফিসার এআইজি মাহবুব চব্বিশ বিসিএস-এ আমার ব্যাচমেট। সশরীরে তার সাথে সাক্ষাতে কৃতজ্ঞতায় বলি, ম্যাজিকের মতো কাজ টা কীভাবে এত দ্রুত করে দিলেন? মাহবুব ভাইয়ের উত্তরটা ছিল মাত্র দুলাইনের, একজন কনস্টেবলের আপনত্ব বোধে যেভাবে হাইলাইটস করে আপনি বলেছেন, সে আপনার প্রাইমারি এবং হাইস্কুলের বন্ধু, একই এলাকার আপনারা। বদলিতে তার পরিবার পরিজন নিয়ে বিপদে পড়ছে, ভাই আপনি একটু দেখবেন প্লিজ! আমার কাছে আপনার আকুতিটা এতো ভালো লাগছে যে আপনি একজন সামান্য কনস্টেবলকে সম্মান দিয়ে নিজের ভাই, বন্ধু বলে সম্বোধন করলেন! অন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ বাদ দিয়ে তাই আপনার বন্ধুর কাজটাই আমার কাছে মহাগুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠলো।

আমাদের বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বন্ধু নিয়ে একটি চমৎকার উক্তি দিয়েছেন,,, “আমরা বন্ধুর কাছ থেকে মমতা চাই, সমবেদনা চাই, সাহায্য চাই ও সে জন্যই বন্ধুকে চাই”



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com