1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:০৬ পূর্বাহ্ন

স্বস্তির বৃষ্টি হলে ও বাগান রক্ষায় চলছে সেচ । চায়ের উৎপাদনে তৎপর চা বাগান ।

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৪৪ Time View


রফিকুল আলম, ফটিকছড়ি :
চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে ১৭ টি চা বাগানের প্রায় গাছ বৃষ্টির অভাবে দুর্বল হয়ে গেছে। সবুজ বাগানগুলো হয়ে গেছে বিবর্ণ। গাছে নতুন কুঁড়ি নেই। খন্ড খন্ড বাগান জ্বলে যাচ্ছে রোদের খরতাপে। উৎপাদনের চেয়ে বাগানের গাছ বাঁচানোর লড়াইয়ে নেমেছে চা বাগান কর্তৃপক্ষ । গত দুই বছর ধরে এপ্রিলের আগে বৃষ্টি দেখা নেই। যদিও এর আগে ফেব্রুয়ারি বা মার্চেই বৃষ্টি হতো। এ বছর চাহিদা পরিমাণ বৃষ্টি না হওয়ায় নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে চা বাগানগুলোতে। প্রকৃতির এমন আচরণকে বৈশ্বিক জলবায়ুর প্রভাব বলেছেন বিশেষজ্ঞরা। এমতাবস্থায় হঠাৎ বুধবারে একটু বৃষ্টিতে কিছুটা স্বস্থি আসলে ও পর্যাপ্ত বৃষ্টি না হলে চা উৎপাদন ব্যহত হবে।
সরেজমিনে উপজেলার হালদা ভ্যালী,সিটি গ্রুপের কর্ণফুলী, আধাঁরমানিক,বার মাসিয়া, দাঁতমারা, এলাহি নূর, কৈয়াছড়া , মা জান, মোহাম্মদ নগর , নাছেহা, নেপচুন, উদালিয়া, পঞ্চবটি, রামগড়, আছিয়া,রাঙ্গাপানি ও নিউ দাঁতমারা চা বাগানের কয়েকটি ঘুরে দেখা গেছে, গাছ শুকিয়ে মরে যাচ্ছে। সবুজ বাগানগুলোর পাতা বিবর্ণ হয়ে গেছে। বাগানের নতুন চারাগাছ (ইয়ং টি) সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। চা বাগানে খন্ড খন্ড অংশে অন্যন্যা বারের চেয়ে নতুন কুড়িঁ খুবই কম। গাছের সঠিক পরির্চচায় ইরিগেশন করে, আবার কোনো কোনো বাগানে শ্রমিকরা বিকল্প ভাবে পানির সেচ দেওয়ার চেষ্টা করছেন। চা বাগানের জন্য প্রতি বছর ৭০ হতে ৭৫ ইঞ্চি, প্রতিমাসে ৪ হতে ৫ ইঞ্চি পরিমান বৃষ্টির প্রয়োজন।
সংশ্লিষ্টদের আশঙ্কা, যদি পর্যাপ্ত পরিমাণ বৃষ্টি না হয়ে খরতাপ অব্যাহত থাকলে উপজেলা ১৭ টি চা বাগানে এবার চায়ের উৎপাদনে ধস নামবে। বাগানগুলো মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। গত বছর ও খরার কারনে লক্ষমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হয়নি। ফটিকছড়ির ১৭ টি চা বাগানে গত মার্চ পর্যন্ত আনুমানিক ২ লাখ কেজির উপরে উৎপাদিত হযেছে। সব ঠিক থাকলে লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে আরো বেশী উৎপাদন হবে বলে আশাবাদ সংশ্লিষ্টদের।
এদিকে সিটি গ্রুপের মালিকানাধীন এশিয়ার বৃহত্তম চা বাগান কর্ণফুলী চা বাগানের ম্যানেজার মো: শফিকুল ইসলাম বলেন, এ বাগানের দৈর্ঘ ১৮ কিলোমিটার আর প্রস্থ ৯ কিলোমিটার। এ বাগানে গত বছর খরার মধ্যে ও ইরিগেশন ব্যবস্থা ভাল থাকায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২ লাখ ৩ হাজার কেজি বেশী উৎপাদন হয়েছিল।
আশা করি সব ঠিক থাকলে এবার ও লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করা সম্ভব হবে।
বাংলাদেশী চা সংসদ, চট্টগ্রাম অঞ্চলের চেয়ারম্যান ও উদালিয়া চা বাগানের ব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলাম জানান, চট্টগ্রাম ভ্যালীতে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত চা উৎপাদন হয়েছিল ১ লাখ ৮৭ হাজার কেজি। কিন্ত, চলিত সালের মার্চ পর্যন্ত উৎপাদন বেড়ে দাড়ায় ২ লাখ ১৭ হাজার ৩’শ ৭৮ কেজি। তবে, এ যাবৎ চট্টগ্রাম অঞ্চলে বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় জলাধার গুলো শুকিয়ে গেছে। বিভিন্ন বাগানে ইরিগেশন ব্যবস্থা চাহিদা মতো নেই। তবু সব চা বাগান লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গত বুধবারে সামান্য বৃষ্টি হলে ও তা চা গাছের জন্য অনেক ভালো হয়েছে। তিনি প্রতিটি চা গাছে পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি না ফেলে গাছের কুড়িঁর কারনে উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছানো সম্ভব নয় বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com