1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন

হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্ হাসানী (ক.)’র ১১তম ওরশ শরীফে ভক্তদের ঢল।। দুই শতাধিক বছর থেকে মাইজভাণ্ডারী মহাত্মাগণ এতদঞ্চলে সুন্নিয়ত ও ত্বরীক্বতের চর্চায় পথিকৃৎ এর ভূমিকা পালন করছেন —-শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.)

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট, ২০২২
  • ২১০ Time View

রফিকুল আলম ত্বরীক্বায়ে মাইজভাণ্ডারীয়ার বৈশ্বিক রূপদানকারী, বিশ্ববরেণ্য সূফীসাধক শায়খুল ইসলাম হযরত গাউছুল ওয়ারা শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আলহাসানী (ক.)’র ১১তম ওরশ শরীফ উপলক্ষে দুই দিনব্যাপী মহা সুন্নি সম্মেলনের বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠান,দেশ ও বিশ্ববাসীর শান্তিসমৃদ্ধি ও মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ কামনায় আখেরী মুনাজাতের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) শেষ হয়েছে। চট্টগ্রাম ফটিকছড়ির মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফে আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়ার উদ্যোগে ওরশ মাহফিল ও মহা সুন্নি সম্মেলনে সভাপতিত্ব ও আখেরি মুনাজাত পরিচালনা করেন মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন রাহ্বারে শরীয়ত ও ত্বরীক্বত হযরত শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী (মা.জি.আ.)। ১৭ ও ১৮ আগস্ট বুধ-বৃহস্পতিবার দুই দিনব্যাপী ওরশ শরীফে অংশ গ্রহণের লক্ষ্যে দেশের নানা প্রান্ত থেকে আসা লাখোভক্ত জনতার পদভারে মুখরিত হয়ে ওঠে মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফের বিশাল এলাকা।

ওরশ উপলক্ষে গৃহীত কর্মসূচিতে ছিল খতমে কুরআন, খতমে গাউছিয়া, হযরত বাবাভাণ্ডারী (ক.) ও হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (ক.) ক্বেবলার রওজায় গিলাফ চড়ানো, ভক্তদের ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প, রক্তের গ্রুপ নির্ণয়, যৌতুক ও মাদকের বিরুদ্ধে গণ স্বাক্ষর, হুজুর কেবলার জীবনী আলোচনা। খোশরোজ শরীফ মাহফিলের সমাপনী দিবসে সভাপতির বক্তব্যে হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আলহাসানী বলেন, মাইজভাণ্ডার দরবার সর্বস্তরের মানুষের মিলনকেন্দ্র ও নিরাপদ ধর্মীয় আবাসস্থলএখানে এসে ভাগ্য অন্বেষী,মুক্তি প্রত্যাশী,দুঃখ,দুর্দশায় নিমজ্জিত মানুষ মাইজভাণ্ডারী মহাত্মাদের কাছে সবিনয়

আর্তি,আরজি পেশ করেন। সবাই নিজ নিয়ত ও ইচ্ছা অনুযায়ী আল্লাহর ওলীদের আধ্যাত্মিক করুণায় সিক্ত হন। তিনি বলেন,দুই শতাধিক বছর থেকে মাইজভাণ্ডারীমহাত্মাগণ এতদঞ্চলে সুন্নিয়ত ও ত্বরীক্বতের চর্চায় পথিকৃৎ এর ভূমিকা পালন করছেন।আউলিয়ায়ে কেরামের বদৌলতেই এদেশে সুন্নিয়তের উজ্জ্বল শিখা প্রজ্বলিত রয়েছে।আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের সাবেক প্রেসিডেন্ট হযরত শাহ্সূফী সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী মাইজভাণ্ডারী (ক.) ছিলেন সুন্নিয়তের ঐক্যের প্রতিক।তিনি জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে সুন্নিয়তের সুদৃঢ় ভিত্তি গড়ে দিয়েছেন।আজকে ফেৎনা ফ্যাসাদের যুগে সুন্নীয়তের হৃদগৌরব ফিরিয়ে আনতে মাইজভাণ্ডারী মহত্মাদের পদাংক অনুসরণের বিকল্প নেই। হুজুর কেবলা বলেন, মাইজভাণ্ডারী সার্বজনীন প্রেমবাদী দর্শন শান্তি সম্প্রীতিরই দর্শন। মাইজভাণ্ডারী দর্শনে সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ, উগ্রবাদ ও ধর্মীয় বাড়াবাড়ির কোনো সুযোগ নেই। তাই আলেম ওলামাসহ দায়িত্বশীলদের বক্তৃতা বিবৃতি ও লেখনীতে সতর্ক হতে হবে। তিনি বলেন, মাওলা আলী (রাদ্বি.)’র শানে

খারেজীনাসেবীদের বেয়াদবী কোনোভাবেই সহ্য করা যায় না।কারবালার প্রান্তরে ইমাম হোসাইন(রাদ্বি.)সহ আহলে বাইতের সদস্যগণ নিজের জীবন দিয়ে আমাদেরকে শিখিয়েছেন।সুন্নি জনতার ঐক্যেই পারে খারেজী, নাসেবীদের আস্ফালন প্রতিহত করতে।সুন্নিয়তের ঐক্যের স্বার্থে খারেজী, নাসেবীদের আস্ফালন বন্ধ করার আহ্বান জানান তিনি। ওরশ শরীফে বিশেষ অতিথি ছিলেন, শাহ্জাদা সৈয়দ মেহবুব-এ-মইনুদ্দীন আল্ হাসানী , হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্টের মহাসচিব খলিফা অ্যাডভোকেট কাজী মহসীন চৌধুরী।আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন আন্জুমান কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আলহাজ আলমগীর খান, প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমিন ভূঁইয়া চাঁদপুরী, সহপ্রচার সম্পাদক ও মইনীয়া জাতীয় গণমাধ্যম ফোরামের সদস্য সচিব শাহ্ মোহাম্মদ ইব্রাহিম মিয়া, মাওলানা মুফতী খাজা বাকী বিল্লাহ আল আজহারী, মাওলানা আব্দুস ছাত্তার ছিদ্দিকী, মাওলানা বাকের আনছারী, মইনীয়া যুব ফোরামের সাধারণ সম্পাদক খলিফা মুহাম্মদ আসলাম হোসাইন, হাবিবুর রহমান পায়েল, মাওলানা এইচএম মাকসুদুর রহমান, মাওলানা হাফেজ নঈম উদ্দিন, মাওলানা হাফেজ নাজের হোসাইন, গোলাম কিবরিয়া প্রমুখ। সালাত ছালাম জিকির আজকার ও আখেরী মুনাজাতের পর তবরুক বিতরণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় দুই দিনব্যাপী ওরশ মাহফিল।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com