1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০১:৩৩ পূর্বাহ্ন

হাঁটু জলে-পায়ে হেঁটে দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে হজরত বাবা ভান্ডারীর ফকির গুহা আস্তানা শরীফ দর্শন ভক্তদের

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৮৬৬ Time View

প্রদীপ শীল, রাউজানঃ

আধ্যাতিক জগতের প্রাণ পুরুষ মাইজভান্ডার দরবার শরীফের অন্যতম অলি হজরত গোলামুর রহমান মাইজভান্ডরী (প্রকাশ বাবা ভান্ডারী) একজন সাধক পুরুষ ছিলেন। তিনি আজ থেকে শত বছর আগে রাঙ্গামাটি জেলার কাউখালী উপজেলার ফটিকছড়ি ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ী গহিন অরন্যের ফরিদ খালী খালের পাশে পাহাড়ের গুহায় কঠিন রেয়াজতে মগ্ন ছিলেন। তিনি ওখানে দীর্ঘদিন মানবশুন্য পর্বত শিখায় সাধনা করে অাল্লাহের নৈকট্য লাভ করেন ।

বর্তমানে এই এলাকাটি ফকির গুহা নামে পরিচিত। আধুনিক ও তথ্য প্রযুক্তির এই বিশ্বে বাবা ভান্ডারীর আস্তানায় জিয়ারত করতে প্রায় চার কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে যেতে হয়। বর্তমানে অাস্তানা শরীফে যাওয়ার পথে বিচ্ছিন্ন কিছু পাহাড়ী আদিবাসীদের বসতি গড়ে উঠলেও সেখানে কোন বাঙ্গালীর পরিবারের বসতি নেই। রাউজান উপজেলার শেষ সীমান্তবর্তী হলদিয়া ইউনিয়ন অতিক্রম করে কাউখালী উপজেলার ডাবুয়া ইউনিয়নের পোড়া বাজার পযর্ন্ত গাড়ী নিয়ে যাওয়া যায় । সেখান থেকে ফরিদ খালী খাালে হাটুজল দিয়ে পায়ে হেঁটে চার কিলোমিটার পথ অতিক্রম করলে কাউখালীর ফটিকছড়ি ইউনিয়নের বাবা ভান্ডরীর আস্তানা শরীফ। এই আস্তানা শরীফে প্রতিদিন শতশত ভক্ত আশেকদের পদচারনায় মুখরিত হয়। এক সময় জনমানব শুন্য গহিন অরন্যে পাহাড়ের গুহায় বন্য প্রাণীর বসবাসের স্থান ছিল। সেখানে হজরত গোলামুর রহমান বাবা ভান্ডারী দীর্ঘ ১২ বছর কঠিন রেয়াজত করেন বলে স্থানীয়রা জানান। সেখানে তিনি রেয়াজত শেষে রাউজান উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের অপর দুর্গম পাহাড়ী এলাকা বটপুকুরিয়া এসে আবোরো কঠিন রেয়াজত শুরু করেন।

পরবর্তীতে মাইজভান্ডারী ত্বরিকার প্রর্বতক হজরত গাউসুল আজম আহম্মদ উল্লাহ মাইজভান্ডারীর নির্দেশে বটপুকুরিয়া থেকে মাইজভান্ডার দারবার শরীফে নিয়ে যাওয় হয়। তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায় বাবা ভান্ডরীকে পালকিতে করে রাউজানের বটপুকুরিয়া আস্তানা থেকে নিয়ে যাওয়া হয়। তখন পায়ে পরি-মিনতি করি যে প্রিয়, তোমায় গাউছে ধনে নিতে পাঠায়েছে। কালামটি পড়ে পড়ে বাবা ভান্ডারীকে নিয়ে যাওয়া হয় ফটিকছড়ি দরবার শরীফে। তাই বাবা ভান্ডারীর আশেক ভক্ত গন শত ত্যাগ ও কষ্টে দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে তার সাধনাপীট হিসাবে পরিচিত ফকির গুহা ও বটপুকুরিয়া আস্তানা শরীফে মনোবাসনা ফুরোতে জিয়ারত করতে আসে। সেখানে বাবা ভান্ডারীর ফাতেহার আয়োজন করেন তার ভক্তরা।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com