1. Eskander211@gmail.com : MEskander :
  2. rashed.2009.ctg@gmail.com : চাটগাঁইয়া খবর : চাটগাঁইয়া খবর
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০২:২৯ পূর্বাহ্ন

হাই ফ্লু ন্যাজাল ক্যানোলা ও সেন্ট্রল অক্সিজেন সংযুক্ত \ জনগণের টাকায়,জনগণের হাসপাতাল,ফটিকছড়ি কোভিট-১৯ হাসপাতাল \ ২৭ জুলাই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্ভোধন, ২ আগষ্ট রোগি ভর্তি শুরু

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০২০
  • ২১৭ Time View


রফিকুল আলম,ফটিকছড়ি


করোনা সংক্রমনে আক্রান্তদের সু-চিকিৎসার জন্য দেশে প্রথম বারের মতো স্থানীয় জনগণের কোটি টাকার উর্ধে অনুদানে “জনগণের টাকায়, জনগণের হাসপাতাল”চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি সদরের ২০ শষ্যা হাসপাতালটি ৩০ শষ্যায় “ফটিকছড়ি কোভিট-১৯ হাসপাতালে” রুপান্তরীত হয়েছে। যা আগামী ২৭ জুলাই উদ্ভোধন হবে। উপজেলার প্রায় ৭ লাখ জনগণের স্বপ্নের হাসপাতাল নতুন সাজে সজ্জিত একে একে এগিয়ে আসছে মানবতার ফেরিওয়ালারা। ফলে স্বয়ং সম্পূর্ণ একটি কোভিট হাসপাতাল গড়তে তেমন বেগ পেতে হয়নি। হাসপাতালে রয়েছে হাই ফ্লু ন্যাজাল ক্যানোলা, সেন্ট্রল অক্সিজেন সংযুক্ত ও সেন্ট্্রাল এসি এবং করোনা পরীক্ষার নমূনা সংগ্রহ করার ব্যবস্থা। যতদিন সরকারী ভাবে বরাদ্দ ও জনবল না আসে ততো দিন স্থানীয় তহবিলের মাধ্যমে চলবে।প্রশাসনের সহযোগিতায় হাসপাতালটি আগামীতে জেনারেল হাসপাতাল বা বিশেষায়িত হাসপাতাল হিসেবে রুপান্তরীত হবে ।

জানা যায়,২০০৭ সালে তত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে ৩ তলা বিশিষ্ট ২০ শষ্যার হাসপাতালটি সরকারী করন না হবার কারনে কোন জনবল ছিল না। পরে উপজেলা সাবাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর সাথে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মধ্যস্ততায় জোড়াতালি দিয়ে চলে আসছে। এমতাবাস্থায় করোনা সংক্রমনের প্রভাব বিস্তার শুরু হলে গত ৮ জুন স্থানীয় সাংসদ আলহ্জাব সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী উপজেলার স্থানীয় সকল জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে,এলাকাবাসীর চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার জন্য কোভিট-১৯ হাসপাতাল করতে উদ্যোগ গ্রহন করেন। সাংসদ এ হাসপাতাল সংস্কার তদারকির দায়িত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ সায়েদুল আরেফিনকে এবং করোনা হাসপাতাল করার জন্য সরকারী অনুদান না থাকায় যেই বিশাল অংকের টাকার দরকার তাতে সহযোগীতা করার জন্য সাংসদ সকল মানবতাবাদী বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহবানে সারা দিয়ে অনেক রাজনৈতিক সংগঠন ও মানবতাবাদী ব্যক্তিবর্গ,প্রবাসী, শিক্ষা প্রতিষ্টানের শিক্ষক ও সাবেক শিক্ষার্থীবৃন্দ, সামাজিক সংগঠন, বয়োবৃদ্ধা ও শিশু সহ নানা পেশার শত শত মানুষ আর্থিক অনুদান প্রদানে এগিয়ে এসেছেন। টাকা ছাড়া ও হাসপাতাল করতে ডাক্তার, নার্স ও রোগীদের প্রয়োজনীয় ৬৩ প্রকারের বিভিন্ন জিনিষ পত্রের চাহিদা তালিকা মতে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠন প্রদান করেন ও করে যাচ্ছেন। এভাবে যার যার অবস্থান থেকে মানবতার ফেরিওয়ালারা এগিয়ে আসায় স্বপ্নের হাসপাতাল নতুন সাজে সজ্জিত। কাজের সার্বক্ষনিক দায়িত্বে রয়েছেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এইচ এম আবু তৈয়ব,উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সায়দুল আরেফিন, পৌর মেয়র মোঃ ইসমাইল হোসেন, ইউ এইচ ও নাবিল চৌধুরী ও ডাক্তার জয়নাল আবেদিন মূহুরী।
এদিকে ২০০৭ সালে নির্মিত এ হাসপাতালটি গত ২১ জুন হাসপাতালটি জনগণের অর্থে অস্থায়ীভাবে হাসপাতালটি চালাতে স্বাস্থ্য বিভাগের অনুমতি লাভ করে। গত ২৮ জুন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদ পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং সব ধরনের সহয়তার আশ্বাস দেন।
জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সায়েদুল আরেফিন বলেন, এতো টাকা ব্যয়ে এ হাসপাতাল করতে পারব কিনা চিন্তিত ছিলাম। স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী সহ প্রিয় ফটিকছড়ির সর্বস্তরের মানুষ যে ভাবে এগিয়ে এসেছে, তা সত্যিই প্রশংসনীয়। তিনি আরো বলেন,এ হাসপাতালে করোনায় আক্রান্তদের সু-চিকিৎসা করতে যা প্রয়োজন সবই থাকছে। সেন্ট্রাল এসি ও অক্্িরজেন সমৃদ্ধ অত্যাধুনিক কেবিন এবং আইসোলেশন সেন্টার। চিকিৎসা দিতে ৬ জন ডাক্তার,১৫ জন নার্স ও সহায়তায় থাকবে আরো ২০ জন সেচ্ছাসেবক। আগামী ২৭ জুলাই হাসপাতাল উদ্ভোধন হবে এবং ২ আগষ্ট থেকে রোগি ভর্তি শুরু হবে। তিনি আরো বলেন,মানুষ যাতে সূলভ মূল্যে বিশেষজ্ঞ সেবা পায় সে ব্যবস্থা হবে। এই হাসপাতাল হবে নন প্রফিট হাসপাতাল।
অপরদিকে উপজেলার করোনা রোগীর জন্য হাসপাতালে ড. মাহামুদ হাসান ফাউন্ডেশন এ্যাম্বুলেন্স প্রদান করবে।সে সাথে চালক ও জ¦ালানী খরচ সহ এ্যাম্বুলেন্সের যাবতীয় ব্যয় ফাউন্ডেশন বহন করবে বলে জানান, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ সদস্য আখতার উদ্দিন মাহমুদ পারভেজ।
ফটিকছড়ি পৌর সভার মেয়র আলহাজ্ব মুহাম্মদ ইসমাইল হোসেন বলেন, হাসপাতালটি যেহেতু পৌরসভার প্রাণ কেন্দ্রে তাই সব সময় দৃষ্টি রাখতে হবে। হাসপাতালটি গড়তে স্থানীয় সাংসদ সহ উপজেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধি সহ সর্বস্তরের মানুষ যে ভাবে সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেছে, তা চির স্বরণীয় হয়ে থাকবে। তাছাড়া বিশ্বে করোনা ভাইরাসের এ সময়ে প্রবাসীরা ও এগিয়ে এসেছে।
স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী বলেন, আমার প্রিয় ফটিকছড়ির কোন মানুষ যাতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বিনা চিকিৎসায় মারা না যায় সে জন্য এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কোভিট-১৯ হাসপাতালটি স্বয়ং সম্পূর্ণ করতে সবাই যার যার অবস্থান থেকে যে ভাবে এগিয়ে এসেছে, আগামীতে ও আমরা করোনা কালে সবাই এভাবে ঐক্য বন্ধ থাকলে মানবিক ফটিকছড়ি গড়তে পারব।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2017 chatgaiyakhobor.Com